আজ বিশ্ব ইজতেমা প্রথম পর্বের আখেরি মোনাজাত

  

পিএনএস ডেস্ক: বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বের দ্বিতীয় দিন শনিবার জিকির-আসকার, বয়ান, ইবাদত-বন্দেগি, ঘুম, খাওয়া-দাওয়ার মধ্যে পার করেছেন অংশগ্রহণকারীরা। আজ রোববার বেলা ১১টায় আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব।

বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব শুরু হবে ১৯ জানুয়ারি থেকে। ২১ জানুয়ারি আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এবারের বিশ্ব ইজতেমা।

প্রথম পর্বের ইজতেমায় ৫০টি দেশের আট হাজার এবং দেশের ১৪টি জেলার কয়েক লাখ মুসল্লি অংশ নিচ্ছেন। আখেরি মোনাজাতে মুসল্লির সংখ্যা আরও বাড়তে পারে।

টঙ্গীতে তুরাগ নদের পাড়ে ইজতেমা মাঠে লাখো মানুষের ভিড়। কিন্তু সেভাবে হইচই, হুড়োহুড়ি বা কোলাহল নেই। সবাই নিজের মতো করে শৃঙ্খলা মেনে চলছেন। সবার মাঝেই রয়েছে সহযোগিতার মনোভাব। মাঠজুড়ে বিশাল শামিয়ানার নিচে ছোট ছোট দলে ভাগ হয়ে অবস্থান করছেন অংশগ্রহণকারীরা। মাঠে পাটি, লেপ-তোশক পেতে ঘুমানোর ব্যবস্থা।

গতকাল বাদ ফজর মুসল্লিদের উদ্দেশে বয়ান করেন বাংলাদেশের মাওলানা নূরুর রহমান। বয়ান শেষে বিভিন্ন খিত্তায় নিজেদের মধ্যে বয়ান নিয়ে আলোচনা হয়। সকাল ১০টার পর থেকে জোহরের নামাজের আগ পর্যন্ত কেন্দ্রীয়ভাবে বয়ান থাকে না।

এ সময়ও অনেকে ব্যস্ত জিকির-আসকারে, কেউ কোরআন-হাদিস পড়ছেন। কেউ কেউ ছোট ছোট দলে বয়ান শুনছেন। আর কেউ কেউ ব্যস্ত রান্নার জোগাড় নিয়ে। ইজতেমার মাঠের রাস্তার ধারে চলছে রান্নার আয়োজন। ছোট ছোট দলে আসা অংশগ্রহণকারীরা নিজেরাই নিজেদের খাবার রান্না করেন।

জোহরের নামাজের জামাতে অংশ নেন বিপুলসংখ্যক মুসল্লি। নামাজের পর আবার বয়ান শুরু হয়। বয়ান করেন সুদানের মাওলানা জাহাদ। এছাড়া গতকাল বাদ আসর বাংলাদেশের নূরুর রহমান, বাদ মাগরিব মাওলানা ফারুক হোসেন বয়ান করেন।

নারায়ণগঞ্জের মাদ্রাসাছাত্র কাউসার আহমেদ, আব্দুল মান্নান, বোরহান উদ্দীন অন্যদের সঙ্গে এসেছেন ইজতেমায়। কাউসার বলেন, ইজতেমায় দেশ-বিদেশের সব শ্রেণি-পেশার মানুষ অংশ নেন। সবাই মিলে দোয়া করেন, বয়ান শোনেন। ইজতেমায় এলে অন্য রকম ভালো লাগা কাজ করে।

ভারতের প্রখ্যাত আলেম ও বিশ্ব তাবলিগ জামাতের আমির মাওলানা জোবায়েরুল হাসানের মৃত্যুর পর থেকে মোনাজাত পরিচালনা করে আসছেন দেশটির আরেক শীর্ষস্থানীয় তাবলিগ মুরব্বি মাওলানা সাদ কান্ধলভি। এবার তাকে নিয়ে ক্ষোভ-বিক্ষোভ তৈরি হওয়ায় তিনি ইজতেমায় অংশ নিচ্ছেন না। তার অনুপস্থিতিতে আখেরি মোনাজাত ও হেদায়েতি বয়ান করবেন বাংলাদেশের দুজন আলেম। এবার আখেরি মোনাজাত ও হেদায়েতি বয়ান দুটোই হবে বাংলায়।

বিশ্ব ইজতেমার আয়োজক কমিটির সদস্য মুরব্বি প্রকৌশলী মো. গিয়াস উদ্দিন জানান, আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করবেন মাওলানা হাফেজ জোবায়ের। হেদায়েতি বয়ান করবেন মাওলানা আব্দুল মতিন। গত শুক্রবার রাতে তাবলিগ জামাতের মুরব্বিদের বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়।

গাজীপুরের পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদ বলেন, আখেরি মোনাজাতকে কেন্দ্র করে নিরাপত্তাব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। এছাড়া যান চলাচলেও কিছু নিয়ন্ত্রণ থাকবে। শনিবার মধ্যরাতের আগেই ঢাকা থেকে আসা যানবাহনগুলোকে আব্দুল্লাহপুর থেকে কামারপাড়া অভিমুখে পাঠিয়ে দেয়া হবে। ময়মনসিংহ ও টাঙ্গাইল থেকে ঢাকাগামী যানবাহনগুলোকে ভোগড়া চৌরাস্তা এবং সিলেট থেকে ঢাকাগামী যানবাহনগুলোকে টঙ্গীর নিমতলীতে আটকে দেয়া হবে।

নারায়ণগঞ্জ জেলা তথ্য কর্মকর্তা মো. রাহাত হাসনাত জানান, ইজতেমায় অংশগ্রহণকারীদের সুবিধার্থে ১৯টি বিশেষ ট্রেন চলাচল করবে। এছাড়া সব আন্তনগর ট্রেন টঙ্গীতে যাত্রাবিরতি করবে। বিআরটিসি দুই শতাধিক বিশেষ বাস সার্ভিস চালু করেছে।

পিএনএস/আনোয়ার

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech