ওষুধ ছাড়াই মাত্র ৭২ ঘণ্টায় ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ

  

পিএনএস ডেস্ক : দীর্ঘদিন ধরে ওষুধ কিংবা ইনসুলিন নিয়েও ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করতে পারছেন না- এমন রোগীদের জন্য সুখবর। ওষুধ কিংবা ইনসুলিন ছাড়াই কিভাবে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করা যায়, বেসরকারি প্রতিষ্ঠান হলিস্টিক হেলথ কেয়ার সেন্টার রোগীদের সেই পরামর্শ দিচ্ছে। ওই কৌশল প্রয়োগের মাধ্যমে মাত্র ৭২ ঘণ্টার মধ্যে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করা যাবে।

শুক্রবার রাজধানীর পান্থপথে সেল সেন্টার মিলনায়তনে ‘৭২ ঘণ্টায় ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ’ শীর্ষক এক অনুষ্ঠানে এ তথ্য জানানো হয়। হলিস্টিক হেলথ কেয়ার সেন্টার এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সমকালের উপ-সম্পাদক আবু সাঈদ খান। তিনি বলেন, বিভিন্ন ধরনের মেডিটেশন, ব্যায়াম থেকে মানুষ দূরে সরে যাচ্ছে। অপরদিকে ওষুধ কোম্পানিগুলোর আগ্রাসী বাণিজ্যিক নীতির কবলে পড়ে মানুষের মধ্যে ওষুধ নির্ভরতা দিন দিন বাড়ছে। ওইসব ওষুধ সেবনের মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। যা জনস্বাস্থ্যের জন্য মারাক্তক ক্ষতিকর। তাই এই ওষুধ নির্ভরতার বিরুদ্ধে একটা যুদ্ধ প্রয়োজন। এই যুদ্ধ হবে কিভাবে ওষুধ ব্যবহার কমানো যায়, সার্জারি না করানো যায়, সে বিষয়ে সবাইকে সচেতন করে তোলা।

অনুষ্ঠানে প্রধান আলোচক ছিলেন হলিস্টিক হেলথ কেয়ার সেন্টারের পরিচালক অধ্যাপক ডা. গোবিন্দ চন্দ্র দাস। তিনি বলেন, ডায়াবেটিস কোনো প্রাণঘাতী রোগ নয়। তবে সব রোগের উপসর্গ হিসেবে কাজ করে। নিয়মতান্ত্রিক জীবনযাপনের মাধ্যমে ডায়াবেটিস আক্রান্ত একজন ব্যক্তি শতভাগ সুস্থ থেকে দীর্ঘায়ু লাভ করতে পারেন।

ডা. গোবিন্দ দাস আরও বলেন, ওষুধের ব্যবহার ছাড়া শুধুমাত্র ব্যায়াম, খাদ্য ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে মাত্র ৭২ ঘণ্টা বা তিন দিনে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব। হলিস্টিক হেলথ কেয়ার সেন্টারে এমন বেশকিছু রোগী আছেন, যারা দীর্ঘদিন ধরে ওষুধ কিংবা ইনসুলিন ব্যবহারের পরও ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করতে পারছিলেন না। এসব রোগীদের কিছু সুনির্দিষ্ট কৌশল ও প্রক্রিয়া শিখিয়ে দেওয়ার পর তাদের ডায়াবেটিস এখন সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে এসেছে। এ কৌশলটি সবার মধ্যে ছড়িয়ে দেওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

অনুষ্ঠানে রোগীরা ওষুধ কিংবা ইনসুলিন ছাড়াই কিভাবে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে এনেছেন, সে সম্পর্কে অবহিত করেন। বেসরকারি কলেজের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক মহীন্দ্র নাথ বলেন, দীর্ঘ ১০ বছর ধরে তিনি ডায়াবেটিসে ভুগছেন। আগে প্রতিদিন ৫৬ ইউনিট করে ইনসুলিন নিতেন। বর্তমানে ইনসুলিন ও ওষুধ ছাড়াই ব্যায়াম ও খাদ্য ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে সুস্থ আছেন। ফরিদপুরের এক গৃহবধূ জানান, আগে প্রতিদিন ১০০ ইউনিট করে ইনসুলিন নিতে হতো। এখন হলিস্টিক হেলথ কেয়ারের পরামর্শ পালন করে তিনি ইনসুলিন ছাড়াই সুস্থ আছেন।

অনুষ্ঠানে ড. আলমাসুর রহমান রোগীদের বিভিন্ন পরামর্শমূলক বক্তব্য দেন। গত বৃহস্পতিবার শুরু হওয়া তিনদিন ব্যাপী এ অনুষ্ঠান শেষ হবে শনিবার। অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন তথ্য সচিব নাসির উদ্দিন আহমেদ।

পিএনএস/জে এ /মোহন

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech