পাসপোর্ট-ভিসা ছাড়া বিমানে এসআই, তদন্ত কমিটি গঠন

  


পিএনএস ডেস্ক: হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ভিসা-পাসপোর্ট ছাড়াই পোশাক পরিহিত অবস্থায় থাই এয়ারওয়েজের একটি উড়োজাহাজে উঠে পড়েন পুলিশের ঢাকা রেঞ্জের উপ-পরিদর্শক (এসআই) আশিকুর রহমান। এতে বিমানটি ছাড়তে এক ঘণ্টা বিলম্ভ হয়। পুলিশ সদস্যের এ কাণ্ডে বিমানবন্দরের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন উঠায় দুই সদস্যের একটি কমিটি করেছে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)।

এ ঘটনার দুইদিন পর সোমবার একটি তদন্ত কমিটি হয়েছে। তদন্ত কমিটিকে এক সপ্তাহের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

শাহজালাল বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের উপ-পরিচালক মোশারফ হোসেনকে প্রধান করে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। অপরদিকে অন্যজন হলেন, অ্যাভিয়েশন সিকিউরিটি ফোর্সের (এভসেক) এক প্রতিনিধি।

এর আগে গত শনিবার রাতে তদন্তের কথা বলে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পুলিশের পোশাক পরে আশিকুর রহমান বিদেশগামী এক আত্মীয়ের সঙ্গে ব্যাংককগামী থাই এয়ারওয়েজের টিজি-২৪০ ফ্লাইটের একাটি উড়োজাহাজে ওঠেন তিনি। বিষয়টি বুঝতে পেরে নিরাপত্তা ঝুঁকি আছে বলে পাইলট বিমান চালাতে অস্বীকৃতি জানান। পরে ওই ফ্লাইটটি এক ঘণ্টা দেরিতে রাত তিন টায় বিমানবন্দর ছেড়ে যায়। এদিকে পুলিশের এমন কর্মকাণ্ডে বিমানবন্দরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে প্রশ্ন উঠে।

এ ব্যাপারে গঠিত তদন্ত কমিটির প্রধান মোশারফ হোসেন বলেন, ঘটনার দুইদিন পর সোমবার একটি তদন্ত কমিটি হয়েছে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

অপরদিকে বিমানবন্দরের সিভিল এভিয়েশনের একটি সূত্র জানান, সিভিল অ্যাভিয়েশন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপে শনিবার এক ঘণ্টা দেরিতে ফ্লাইটটি ব্যাংককের উদ্দেশে ছেড়ে গেলেও ওই এসআই আশিকুরের বিরুদ্ধে মঙ্গলবার পর্যন্ত কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। উল্টো তাকে বাঁচাতে নানাভাবে ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা চলছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

অপরদিকে বিমানবন্দরের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা একটি সূত্র জানায়, ‘প্রয়োজনীয় কাগজপত্র, তল্লাশি ছাড়া কোনো ব্যক্তির বিমান পর্যন্ত যেতে পারার কথা না। এতে বিমানবন্দরের নিরাপত্তা সংশ্লিষ্টদের চরম গাফিলতির প্রশ্ন ওঠে। ওই পুলিশ সদস্যের এ কাণ্ডে গঠিত তদন্ত কমিটির তদন্ত প্রতিবেদনের ওপর ভিত্তি করেই তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল-মামুন জানান, ইমিগ্রেশন পুলিশ ও গঠিত তদন্ত কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে ওই এসআই’র বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তিনি বলেন, ‘ আইনগত কারণে তার বিরুদ্ধে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেওয়া যায়নি। সম্প্রতি তাকে মুন্সিগঞ্জে বদলি করা হয়েছে। সেখানে যোগদানের পর আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

এ বিষয়ে বিমানবন্দরের প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা (সিএসও) রাশেদা সুলতানা বলেন, কিভাবে ওই এসআই বিমানবন্দরের ভেতরে পোশাক পড়া অবস্থায় প্রবেশ করলেন তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। কেউ তাকে সহায়তা করেছে কিনা তাও দেখা হচ্ছে বলে জানান প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা।

প্রসঙ্গত, যে মুহুর্তে যুক্তরাজ্য সরকার নিরাপত্তা ঝুঁকিতে কার্গোতে মালামাল পরিবহনের ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে নিয়েছেন ঠিক সেই সময় পুলিশের এসআই কাণ্ডে বিব্রত পরিস্থিতিতে পড়েছেন বিমানবন্দর নিরাপত্তা সংশ্লিষ্টরা।

পিএনএস/আনোয়ার


 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech