বিমান দুর্ঘটনায় যশোরের একই পরিবারের নিহত ৩

  


পিএনএস, যশোর: নেপালের কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বাংলাদেশের ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের একটি বিমান বিধ্বস্ত হয়েছে। এতে ৪৯ জন মারা গেছেন। নিহতদের মধ্যে যশোরের এই পরিবারের তিনজন সদস্য রয়েছেন।

নিহতরা হলেন উপ-শহর এ ব্লক এলাকার ২৪৬ নম্বর বাড়ির সানজিদা হক বিপাশা, তার স্বামী রফিকুজ্জামান রুনু এবং তাদের সন্তান অনিরুদ্ধ। তারা ঢাকার শুক্রাবাদে বসবাস করতেন।

নিহত সানজিদার মামা চন্দন জানিয়েছেন, সোমবার (১২ মার্চ) তারা নেপালে যান বেড়ানোর উদ্দেশ্যে। দুপুরে ঢাকার হযরত শাহ জালাল বিমান বন্দর থেকে বিমানে উঠেন তারা। সন্ধ্যার দিকে তার এক আত্মীয়ের মাধ্যমে বিমান দুর্ঘটনার খবর জানতে পারেন এবং তাদের মৃত্যু হয়েছে বলে শোনেন। এ খবর শোনার সাথে সাথে সানজিদার বাড়িতে শোকের ছায়া নেমে আসে। আশেপাশের লোকজন এবং সংবাদকর্মীরা তার বাড়িতে ভিড় জমাতে থাকেন।

বিপাশা ঢাকার সুশাসনের জন্য নাগরিক ‘সুজন’ নামে একটি এনজিওর সমন্বয়ক হিসাবে কাজ করতেন সানজিদা।

বিপাশার ভাই শাহরিয়ার হোসেন জানিয়েছেন, সোমবার দুপুর ১২টার দিকে সর্বশেষ তার সাথে মোবাইল ফোনে কাথা হয়েছিল। সন্ধ্যার দিকে মৃত্যুর খবর জানতে পারেন।

প্রসঙ্গত, সোমবার (১২ মার্চ) দুপুর ২টার ২০ মিনিটে কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের (টিআইএ) ফুটবল মাঠে বিমানটি বিধ্বস্ত হয়। এখন পর্যন্ত ৪৯ জনের নিহতের খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স, বিবিসিসহ আন্তর্জাতিক কয়েকটি গণমাধ্যম।

বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে নিহতদের মধ্যে ২৫ জন বাংলাদেশি। সর্বশেষ প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী আহত ২২ আরোহীকে বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। আহতদের মধ্যে ১১ জন বাংলাদেশি।

বিমানের ৪ জন ক্রুসহ ৭১ জন আরোহীর মধ্যে ৩২ জন বাংলাদেশের, ৩৩ জন নেপালের, একজন মালদ্বীপের এবং একজন চীনের নাগরিক। এদের মধ্যে ৩৭ জন পুরুষ, ২৮ নারী, দুইজন শিশু ও ৪ জন ক্রু।

পিএনএস/আনোয়ার

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech