রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে যে বার্তা দিলেন প্রিয়াঙ্কা

  

পিএনএস ডেস্ক : বলিউড অভিনেত্রী প্রিয়াঙ্কা চোপড়া ইউনিসেফের শুভেচ্ছাদূত হিসেবে গত কয়েকদিন ধরে বাংলাদেশে রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরগুলো ঘুরে ঘুরে দেখেছেন। ২১ মে বাংলাদেশে আসেন প্রিয়াঙ্কা। রোহিঙ্গা শিবির পরিদর্শনের প্রথম দিনই তিনি জানান, আমাদের এবং বিশ্বকে বিপন্ন এসব মানুষদের যত্ন নিতে হবে।

বৃহস্পতিবার কক্সবাজারে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ইউনিসেফের শিশু-বান্ধব কেন্দ্র থেকে ফেসবুক লাইভ করেন প্রিয়াঙ্কা। এতে তিনি রোহিঙ্গা শরণার্থীদের নিয়ে কথা বলেন। বিশেষ করে শরণার্থী শিবিরের চার লাখ রোহিঙ্গা শিশুর ভবিষ্যৎ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন। সামনেই বর্ষা মৌসুম, তখন আরও বিপাকে পড়তে হবে রোহিঙ্গাদের। এ বিষয়ে বিশ্ববাসী দৃষ্টি আকর্ষণ করেন সাবেক এ বিশ্বসুন্দরী।

ইউনিসেফ বাংলাদেশের ফেসবুক পেইজে লাইভে আসার পর তিনি বলেন, হ্যালো, 'আমি প্রিয়াঙ্কা চোপড়া, বাংলাদেশের কক্সবাজার থেকে লাইভ করছি, এই মুহূর্তে বিশ্বের সবচেয়ে বড় শরণার্থী শিবিরগুলোর একটি এটি।' ক্যামেরাম্যানকে শিবিরের পুরোটা দেখানের নির্দেশ দিয়ে প্রিয়াঙ্কা বলেন, যতদূর আমার দৃষ্টি যায় সব রোহিঙ্গাদের কুড়েঘর। ৭ লাখের বেশি রোহিঙ্গা যারা মিয়ানমার থেকে পালিয়ে এসেছে যাদের মধ্যে ৬০ ভাগই শিশু। অর্থ্যাৎ প্রায় চার লাখই হল শিশু যারা এই পরিস্থিতি বসবাস করছে। এসব শিশু কোথা থেকে এসেছে, তার ধর্ম কী, জাত কী এসব আমার কাছে কোনো বিষয় নয়। আমার কাছে শিশু শিশুই। আর সুন্দর ভবিষ্যতের অধিকার সব শিশুরই আছে। শরণার্থী শিবিরের মতো নাজুক পরিস্থিতিতে তাদের বসবাস করতে দেয়া উচিত নয়।

প্রিয়াঙ্কা আরও বলেন, আজ বৃষ্টি হচ্ছে। ঘুম থেকে উঠে এখানে আসার আগে বৃষ্টির সঙ্গে বজ্রপাত হচ্ছিল। সামনে বর্ষা মৌসুম। বিশ্বের এই অংশে বেশ বড় সময় ধরে বৃষ্টি হয়। এ সময় ঘূর্ণিঝড় হয়। এরকম একটা পরিস্থিতিতে প্লাস্টিকের তৈরি কুড়েঘরই লাখ লাখ রোহিঙ্গার একমাত্র আশ্রয়। বর্ষা চলে আসলে তাদের কী হবে? আমাদের সবাই বিশ্বসম্প্রদায় এসব শিশুদের ভবিষ্যৎটাকে অন্যরকম করতে তাদের সাহায্যে এগিয়ে আসতে পারি। কারণ এসব শিশুর কিছু-ই নেই। বিশুদ্ধ পানি, খাবার, আশ্রয়'এর মতো মৌলিক অধিকার থেকে তারা বঞ্চিত। তারা কলেরা, ডায়রিয়ার মতো অসুখে আক্রান্ত হচ্ছে।

পিএনএস/জে এ /মোহন

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech