দশ মাসে ধর্ষণের শিকার ১২৫৩ নারী ও শিশু

  

পিএনএস ডেস্ক : চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে অক্টোবর পর্যন্ত দশ মাসে ১ হাজার ২৫৩ নারী ও শিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছেন। এদের মধ্যে ৭৬৭ জন শিশু। আর জুন পর্যন্ত ছয় মাস পর্যন্ত নারী ও কন্যা শিশু নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে ২০৮৩টি।

বুধবার সকালে বেসরকারি সংস্থা জাতীয় কন্যাশিশু এডভোকেসি ফোরাম এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানায়। জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘যৌন হয়রানি প্রতিরোধ সমন্বিত আইন এখন সময়ের দাবি’ শীর্ষক এক সংবাদ সম্মেলনে প্রতিবেদনটির তথ্য তুলে ধরে সংগঠনটি।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ৯৭ দশমিক ৯৬ ভাগ নারী ও কন্যাশিশু পাবলিক প্লেসে যৌন হয়রানির শিকার হয়েছেন। জানুয়ারি থেকে অক্টোবর পর্যন্ত সময়ে ধর্ষণের শিকার হয়েছে ১ হাজার ২৫৩ জন এদের মধ্যে কন্যা শিশু ৭৬৭ জন।

সংবাদ সম্মেলনে নারী ও কন্যশিশু ধর্ষণের ঘটনা আংশকাজনকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করেন কন্যাশিশু এডভোকেসি ফোরামের সভাপতি ও সুশাসনের জন্য নাগরিকের চেয়ারম্যান ড. বদিউল আলম মজুমদার।

তিনি বলেন, ‘নারীরা নিরাপদ না থাকলে আমাদের সমাজেরই কোনো নিরাপত্তা থাকবে না। তাই আমাদের কন্যাসন্তান, মা-বোনদের ওপর যৌন হয়রানি প্রতিরোধে সম্মিলিত আইন প্রনয়ণ এখন সময়ের দাবি।’

ফোরামের সাধারণ সম্পাদক নাছিমা আক্তার জলি বলেন, ‘একবিংশ শতাব্দীতে এসেও নারীর সম-অধিকারের জন্য গলা ফাটাতে হয় এটা লজ্জাজনক। নারী-পুরুষ সম-অধিকার প্রতিষ্ঠা নিশ্চিত করতে সমাজের সর্বস্তরের মানুষের সম্মিলিত প্রচেষ্টা প্রয়োজন। সঙ্গে বদলাতে হবে সমাজের মানুষের দৃষ্টিভঙ্গি তাহলে বদলে যাবে সমাজ।’

‘আগের তুলনায় হিংসাত্মক ঘটনা বেশি হচ্ছে। আগের তুলনায় এখন ঘটনাগুলোও বেশি জানা যাচ্ছে। কিন্তু প্রতিরোধ করা সম্ভব হচ্ছে না। এর একটাই কারণ আইনের যথাযথ প্রয়োগ না হওয়া। এখন অনেক বাবা -মা পুলিশের কাছে যাচ্ছে। সামাজিক প্রতিরোধ হচ্ছে। এর ফলে নির্যাতক অনেক সময় নিজের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে শিশুটিকেই হত্যা করছে।’

অপরাজেয় বাংলার নির্বাহী পরিচালক ওয়াহিদা বানু বলেন, ‘২০০৯ সালে হাইকোর্টে কর্তৃক নির্দেশনামূলক নীতিমালায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও কর্মস্থলে যৌন হয়রানি প্রতিরোধের প্রতিকারের বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। কিন্তু আমাদের কাছে প্রশ্ন হলো যৌন হয়রানি কেবলমাত্র শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কর্মস্থলেই ঘটছে না, সেটার পরিধি আরও ব্যাপক ও বিস্তৃত।’

তিনি বলেন, ‘সকল জনপরিসরে এমনকি গৃহের অভ্যন্তরে যৌন হয়রানির ঘটনা ঘটছে। তাই ২০০৯ সালে হাইকোর্টে নির্দেশনা দেওয়া রায় নারী ও শিশুদের রক্ষার জন্য যথেষ্ট নয়, তাই আমরা চাই একটি সময় উপযোগী ও নারী ও শিশু হয়রানি প্রতিরোধে সমন্বিত আইন প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন করা হোক।’

নারী সাংবাদিক কেন্দ্র এর সভাপতি নাছিমুন আরা মিনু, গার্লস এডভোকেসি ফোরামের টিম লিডার ফারজানা মেহরিন ও সংবাদকর্মী ও কনসালটেন্ট মো. আহাদ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech