৯৯৯ এ মিথ্যা তথ্য দিলে শাস্তি, খসড়া অনুমোদন

  

পিএনএস ডেস্ক : জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ নীতিমালা-২০২০ এর খসড়া অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। নীতিমালা অনুযায়ী, জরুরি সেবার হটলাইন নম্বর ৯৯৯- এ ফোন করে মিথ্যা, বানোয়াট, গুজব ও বিভ্রান্তিমূলক তথ্য দিলে শাস্তির মুখে পড়তে হবে।

সোমবার (৩০ নভেম্বর) মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে নীতিমালাটি অনুমোদন দেওয়া হয়। বৈঠক শেষে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম এ তথ্য জানান।

এর আগে ভার্চুয়াল মন্ত্রিসভা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

গণভবন থেকে প্রধানমন্ত্রী এবং সচিবালয়ের মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে মন্ত্রীরা ভিডিও কনফারেন্সে বৈঠকে যোগ দেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৈঠকের সভাপতিত্ব করেন।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, রাষ্ট্রীয় সম্পদ, জননিরাপত্তা, জনশৃঙ্খলা, অপরাধ দমন, জনগণের জীবন ও সম্পদের নিরাপত্তা বিধানে জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ এর উল্লেখযোগ্য অবদান রয়েছে। জনজীবনের সফলতা ও সম্ভাবনার বিষয়ে আলোচনান্তে ইমার্জেন্সি সার্ভিস পলিসি ৯৯৯ তথা জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ সংক্রান্ত একটি নীতিমালা প্রণয়ন করা হয়েছে।

তিনি বলেন, এটা (৯৯৯ এর মাধ্যমে জরুরি সেবা দেওয়া) এখন আরও অর্গানাইজড ওয়েতে (সুসংগঠিতভাবে) হবে। এনটিএমসি, বিটিআরসি- সবার সঙ্গে ইনস্ট্যান্ট একটা কমিউনিকেশন সিস্টেম থাকবে।

তিনি বলেন, "নীতিমালায় বলা হয়েছে- যদি কেউ মিথ্যা, বানোয়াট, গুজব ও বিভ্রান্তিমূলক তথ্য যদি দেয় তবে সেটাও দেখা হবে। দণ্ডনীয় অপরাধ হিসেবে অভিহিত হবে। বাচ্চা ছেলে বা কেউ যদি না বুঝে করে 'দ্যাট উইল বি কনসিডার'। তবে যদি চিট করতে চায়, ইচ্ছা করে কেউ কিছু করতে চায় 'দ্যাট উইল বি পানিশ্যাবল'। সেজন্য রেসপেক্টিভ আইন প্রযোজ্য হবে। মিথ্যা তথ্য দেওয়ার শাস্তি পেনাল কোডে রয়েছে। কে কোথা থেকে ফোন করছে, সেটা টোটালি ডিটেক্টের ব্যবস্থা থাকবে। সুতরাং কেউ সহজে ফলস রিং করলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।"

পিএনএস/এসআইআর

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন