তদন্ত করে আসামিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা: ডিসি মতিঝিল

  

পিএনএস ডেস্ক : মতিঝিল জোনের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) সৈয়দ নুরুল ইসলাম বলেছেন, বায়তুল মোকাররম মসজিদে নামাজ পড়তে এসে এক মুসল্লিসহ মামলার সাক্ষীরা আহত হন। পরে তারা এ ঘটনায় বাদি হয়ে থানায় মামলা করেন। পুলিশ তদন্ত পূর্বক আসামিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেবে।

মঙ্গলবার (৬ এপ্রিল) দুপুরে নিজ কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, গত ২৬ মার্চ ভুক্তভোগী আরিফউজ জামান অন্য মুসল্লিদের নিয়ে মসজিদে নামাজ আদায় করতে যান। এ সময় ভুক্তভোগী নিজেই টাইলসের আঘাতপ্রাপ্ত এবং মামলার সাক্ষীরা নানাভাবে জখম হন। এ কারণে তারা ন্যায়বিচারের স্বার্থে পল্টন থানায় মামলা করেছেন। পাশাপাশি নামাজ শেষে তারা দেখেন কিছু মুসল্লি মসজিদের ভেতর জুতা প্রদর্শন করছেন। এ থেকে তাদের বিরত থাকার কথা বললে মামলার সন্দেহভাজন এজাহারভুক্ত আসামিদের প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষ নির্দেশে তাদের সহযোগীরা বাদি ও সাক্ষীদের উপরে হামলা করে বলে অভিযোগ এসেছে।

পুলিশ কর্মকর্তা আরও বলেন, এদিনে তাণ্ডবলীলায় শুধু মামলার ভুক্তভোগীরাই নয়, আরও অনেকেই আহত হন। বায়তুল মোকাররম, পল্টন ও আশপাশের এলাকায় উগ্র মৌলবাদী গোষ্ঠী অসহায় সহজ-সরল মুসল্লিদের উপরে নাক্কারজনকভাবে হামলা করে। আশপাশে তারা নাশকতা চালায়। এলাকার ব্যবসা-বাণিজ্য থেকে সব ধরনের কর্মকাণ্ড বন্ধ হয়ে যায়। সাংবাদিকদের প্রশ্নে নুরুল ইসলাম আরও বলেন, মামলা হয়েছে। মামলার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। তদন্তে যাদের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যাবে, তাদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এর আগে সোমবার (৫ এপ্রিল) পল্টন থানায় খন্দকার আরিফ-উজ-জামান মামলা করেন। আসামি করা হয়- হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হক, সংগঠনটির যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা জুনায়েদ আল হাবীব, মাওলানা লোকমান, মাওলানা নাসির উদ্দিন ও নায়েবে আমির মাওলানা বাহাউদ্দীন জাকারিয়া, মাওলানা নুরুল ইসলাম জেহাদী, মাজেদুর রহমান, মাওলানা হাবিবুর রহমান, মাওলানা খালেদ সাইফুল্লাহ আইয়্যুবী, মাওলানা জসিম উদ্দিন, মাওলানা মাসুদুল করিম, মুফতি মনির হোসাইন কাশেমী, মাওলানা যাকারিয়া নোমান ফয়েজী, মাওলানা ফয়সাল আহমেদ, মাওলানা মুশতাকুন্নবী, মাওলানা হাফেজ মো. জোবায়ের এবং মাওলানা হাফেজ প্রমুখ।

মামলায় বাদী অভিযোগ করেন- উগ্র মৌলবাদী গোষ্ঠী স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী অনুষ্ঠান বানচাল করার জন্য পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী ধর্মীয় লেবাসের আড়ালে জামায়াত-শিবির-বিএনপির দোসর দিয়ে এ হামলা করেছে, যা রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রও।

পিএনএস/এসআইআর

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন