কলগার্ল' সার্ভিসের নামে অনলাইনে প্রতারণার ফাঁদ

  

পিএনএস ডেস্ক : সুন্দর সুন্দর নারীর ছবি দিয়ে আকৃষ্ট করা হতো পুরুষদের। এরপর কথাবার্তা বলে তৈরি করতেন বন্ধুত্ব। একান্ত সময় কাটানোর বিজ্ঞাপনে নারীদের ভরপুর ছবি থাকলেও আসলে এর সবকিছুই ভুয়া।

ঢাকা কলগার্ল সার্ভিস নামে এই ওয়েবসাইটটি ইউটিউব দেখে তৈরি করেছেন আমির নামের অষ্টম শ্রেনী পাশ একজন সিকিউরিটি গার্ড, যেখানে স্কট সার্ভিসের ভুয়া বিজ্ঞাপন দিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে হাতিয়ে নিয়েছে লাখ লাখ টাকা। গ্রেপ্তার করা হয়েছে চক্রের সাথে জড়িতদের। ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) সূত্র জানিয়েছে, সাইটটিতে প্রবেশ করতে প্রথমে নির্দিষ্ট টাকা দিয়ে একটি নম্বরে বুকিং দিতে হয়। এরপর সেই বুকিং দাতার নম্বর পাঠিয়ে দেয়া হতো প্রতারক চক্রের শহিদ নামের অন্য সদস্যের কাছে।

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের গুলশান বিভাগের উপ কমিশনার (ডিসি) মশিউর রহমান জানান, একটি অভিযোগের ভিত্তিতে মাঠে নেমে জানা যায়, এই চক্রটির প্রধান আমির সিকিউরিটি গার্ডের চাকরি করেন। পাশাপাশি প্রতারণার কাজে একটি কলগার্ল সার্ভিসের ওয়েবসাইট বানিয়েছেন। সুন্দরী নারীদের ছবি ওয়েবসাইটে আপলোড করে সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করত। আসলে এটি কোনো পেশাদার বা কমার্শিয়াল কোনো স্কট সার্ভিস নয়।

তিনি বলেন, মোবাইল ফোনে বিশেষ আ্যাপ ব্যবহার করে নারী কন্ঠে ওই ব্যক্তির সাথে কথা বলতেন আমিরের সহযোগী শহিদ। কাস্টমারের সাথে বনিবনার পর নেয়া হতো বাকি টাকা। এরপর নম্বর বন্ধ করে দেয়া হতো অথবা ব্লক করা হতো। তবে পুলিশের এই কর্মকর্তা বলছেন, এসব সাইট থেকে যারা প্রতারণার শিকার হন তারা সাধারণত আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর কাছে অভিযোগ জানাতে চান না।

একজন ভুক্তভোগী নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, ঢাকা কল গার্ল সার্ভিসে বিভিন্ন সুন্দরী নারীদের ছবি আপলোড করা হতো। এরপর লিখে দেয়া হতো কেউ চাইলে টাকার বিনিময়ে সুন্দরীর সঙ্গে একান্তে সময় কাটাতে পারবেন। এজন্য একটা মোবাইল নম্বর দেয়া হয়েছিলো। সেই নম্বরে কেউ যোগাযোগ করলে একজন কল রিসিভ করতো। এরপর আমির জানাত, অগ্রিম হিসেবে ২৬০ টাকা বিকাশে পাঠালে পছন্দের সুন্দরী মেয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করা যাবে। বিকাশে টাকা পাঠিয়ে ম্যাসেজ দিয়ে জানালে বলা হতো কিছুক্ষণের মধ্যেই একজন নারী আপনার সঙ্গে যোগাযোগ করছেন। এরপর কখনো কথার ফাঁদে ফেলে আবার কখনো টাকা পেলেই মোবাইল বন্ধ করে দেয়া হতো।

এ ঘটনায় অভিযোগের পর আমিরসহ তার সহযোগী শহিদকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। পুলিশ বলছে, এরকম আরও বেশ কিছু সাইট বন্ধে বিটিআরসিকে সুপারিশ জানানো হয়েছে। পাশাপাশি এর পেছনে জড়িতদের ধরতেও অভিযান চলছে।

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন