আচরণবিধি লঙ্ঘনের হিড়িক সেনা চেয়ে বিএনপির চিঠি

  


পিএনএস, নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (নাসিক) নির্বাচনে আনুষ্ঠানিক প্রচার শুরু না হলেও প্রার্থীরা ঘরে বসে নেই। ভোটারদের সঙ্গে কুশলবিনিময়, উঠান বৈঠকসহ নানা কৌশলে চলছে প্রচারের কাজ। আর এসব ক্ষেত্রে নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘনের ঘটনাও ঘটছে। তবে অভিযোগ না পেলে নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে নেওয়া হচ্ছে না ব্যবস্থা। গতকাল মঙ্গলবার বিএনপির পক্ষ থেকে নাসিক নির্বাচনে সেনা মোতায়েনসহ বিভিন্ন দাবি জানিয়ে চিঠি দেওয়া হয়েছে নির্বাচন কমিশনে। বিএনপির মেয়র পদপ্রার্থী অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খানকে পূর্ণ সমর্থন জানিয়েছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট। জোটের দুই শরিক দল এলডিপি ও কল্যাণ পার্টির মেয়র পদপ্রার্থীরা তাঁদের প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

স্থানীয় সূত্র জানিয়েছে, সাখাওয়াত হোসেন খান ভোটারদের কাছে দোয়া চাইতে বের হলেও নেতাকর্মীদের নিয়ে বিতরণ করেছেন ছবিসহ লিফলেট, যদিও এটিকে আচরণবিধি লঙ্ঘন বলে মনে করছেন না সাখাওয়াত। অন্যদিকে শহরের ডিয়ারা এলাকায় উঠান বৈঠক করেছেন ডা. সেলিনা হায়াত আইভী। তিনিও অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন, ‘আমি ৫ তারিখের পর আনুষ্ঠানিক প্রচারণা শুরু করব।’

তবে ১৭ নম্বর ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদপ্রার্থী মিনহাজুল কাদির মিমনের একটি দোয়ার অনুষ্ঠান বন্ধ করে দিয়েছেন নির্বাচনী কর্মকর্তারা। সহকারী রিটার্নিং অফিসার ওমর ফারুক বলেন, ‘একজন প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণার অংশ হিসেবে দোয়ার সময়ে আমরা সেখানে গিয়ে প্রথমে বক্তব্য শুনে নিশ্চিত হই। পরে সেটা বন্ধ করে দেওয়া হয়।’

স্থানীয়রা জানিয়েছে, নির্বাচন কমিশন নির্দেশ দিলেও ১৩ নম্বর ওয়ার্ডে মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি রবিউল হোসেনের নামে ব্যানার, ফেস্টুন এখনো শোভা পাচ্ছে। তিনি প্রায় প্রতিদিন মিছিলসহ গণসংযোগ করছেন।

আচরণবিধি ভঙ্গের বিষয়ে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা তারিফুজ্জামান বলেন, ‘আমরা লিখিত কোনো অভিযোগ পাইনি। কোনো সাংসদ নির্বাচনী কাজে আসতে পারবেন না, আবার কেউ ছবি নিয়েও লিফলেট বিতরণ করতে পারবেন না। মিছিল করে গণসংযোগ করাও আচরণবিধির লঙ্ঘন। এমনকি প্রচারণা ও লিফলেট বিতরণও নিষেধ।’

আইভী-সাখাওয়াতের গণসংযোগ : আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র পদপ্রার্থী আইভী গতকাল বিকেলে শহরের শহীদনগর ডিয়ারা এলাকায় নারীদের সঙ্গে উঠান বৈঠক করেন। তিনি সেখানে মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে কথা বলেন এবং তিনটি মহল্লায় নারীদের সঙ্গে উঠান বৈঠক করেন। তিনি ভোটারদের বলেছেন, ‘ভয় পাবেন না, আপনারা কাজ করে যান। মেয়র থাকাকালে আমি আপনাদের সমস্যা শুনে যেটা সঠিক ও ন্যায়সংগত মনে হয়েছে সেটা করেছি। দল ও মতের ঊর্ধ্বে উঠে উন্নয়নকাজ করেছি।’

বিএনপির মেয়র পদপ্রার্থী সাখাওয়াত বন্দর উপজেলার কয়েকটি ওয়ার্ডে দিনব্যাপী গণসংযোগ করেছেন। বাজার, দোকান ও বাড়ি বাড়ি গিয়ে নির্বাচনী দোয়া চান তিনি। প্রার্থীকে কাছে পেয়ে বন্দরবাসী তাদের নানা চাহিদার কথা জানায়। নির্বাচিত হলে তা পূরণের চেষ্টা করবেন বলে আশ্বস্ত করেন সাখাওয়াত।

সাখাওয়াতকে ২০ দলীয় জোটের সমর্থন : গতকাল রাতে গুলশানের কার্যালয়ে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গে জোটের শরিক দলের নেতাদের বৈঠকের পর সাখাওয়াতকে সমর্থন দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, নির্বাচনে জোট শরিক কল্যাণ পার্টি ও এলডিপির যে দুই প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন, তাঁরা তা প্রত্যাহার করে নেবেন বলে সিদ্ধান্ত হয়েছে।

প্রায় ঘণ্টাব্যাপী বৈঠকে মিয়ানমারে রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর হত্যাযজ্ঞ ও তাদের বিতাড়নে ক্ষোভ ও নিন্দা জানিয়ে বিষয়টি সমাধানে মিয়ানমারের সরকার ও জাতিসংঘের সঙ্গে আলোচনার উদ্যোগ নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানানো হয়। ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়ায় কলেজ জাতীয়করণের আন্দোলনের ঘটনায় পুলিশি হামলা ও একজন শিক্ষক হত্যা ঘটনায় নিন্দা জানানো হয়। নির্বাচন কমিশন শক্তিশালীকরণে খালেদা জিয়ার প্রস্তাবাবলিকে সময়োপযোগী ও বাস্তবসম্মত অভিহিত করে জোট নেতারা বিএনপি চেয়ারপারসনকে অভিনন্দন জানান।

সেনা চেয়ে বিএনপির চিঠি : নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচন অবাধ, নিরপেক্ষভাবে অনুষ্ঠানের জন্য ভোটগ্রহণের এক সপ্তাহ আগে থেকে ফল ঘোষণার পরদিন পর্যন্ত সেনাবাহিনী মোতায়েনসহ বেশ কিছু দাবি জানিয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের (সিইসি) কাছে চিঠি দিয়েছে বিএনপি। গতকাল দুপুরে নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিব মোহাম্মদ আব্দুল্লাহর কাছে এ চিঠি হস্তান্তর করে দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভীর নেতৃত্বে একটি প্রতনিধিদল।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর স্বাক্ষরিত এ চিঠি সিইসিকে বিবেচনায় নেওয়ার জন্য পৌঁছে দেবেন বলে প্রতিনিধিদলকে জানান ইসি সচিব মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ।

সেনা মোতায়েন প্রশ্নে আইভী : গতকাল সন্ধ্যায় সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী আইভী। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমি জনগণের ওপর আস্থা রাখতে চাই। এখন পর্যন্ত নির্বাচনের পরিবেশ সুষ্ঠু আছে। তবে সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে নির্বাচন কমিশন যেকোনো বাহিনীকে নিয়োজিত করতে পারে। এ ক্ষেত্রে নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত।’

বিএনপির সমন্বয় কমিটি গঠন : সাখাওয়াত হোসেন খানের পক্ষে নির্বাচন পরিচালনা করতে সমন্বয় কমিটি গঠন করেছে বিএনপি। দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় এই কমিটির প্রধান সমন্বয়ক। সদস্যসচিব দলের ঢাকা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন। গতকাল দুপুরে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে রিজভী কমিটি গঠনের কথা জানান।

আইভীর মন্তব্যে প্রতিক্রিয়া : রবিবার সকালে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ধানমণ্ডির কার্যালয়ে কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে বৈঠককালে মেয়র পদপ্রার্থী সেলিনা হায়াত আইভী নারায়ণগঞ্জের এমপি শামীম ওসমানের পিতাকে নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ অনুসারে আইভী সেখানে বলেছেন, ‘শামীম ওসমান থাকলে ভালো, না থাকলে আরো ভালো। তাঁর বাবার অবদানের চেয়ে আমার বাবার অবদান কম কী ছিল? তাঁর বাবা দল করে টাকা কামাই করেছেন। আর আমার বাবা দল করে অর্থ-সম্পদ খুইয়েছেন।’

শামীম ওসমানের বাবা প্রয়াত ভাষাসৈনিক ও মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক এ কে এম সামসুজ্জোহা সম্পর্কে এ মন্তব্য জেনে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগে প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়েছে। মহানগর ও জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতাদের অনেকেই বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

বন্দর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুর রশীদ বলেন, ‘আইভীর সঙ্গে শামীম ওসমানের ব্যক্তিগত বিরোধ নেই, তাদের মধ্যে বিরোধিতা নীতিগত। জোহা ভাইয়ের মতো একজন কর্মীবান্ধব নির্লোভ মানুষকে নিয়ে এমন বক্তব্য দিয়ে আইভী প্রমাণ করেছে সে কখনো ঐক্যের পথে ছিল না।’

সোনারগাঁ থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সামসুল ইসলাম ভুইয়া বলেন, ‘প্রয়াত এ কে এম সামসুজ্জোহা একজন নির্লোভ নেতা ছিলেন। সর্বজনশ্রদ্ধেয় নেতা নিয়ে আইভীর মন্তব্যের জন্য কেন্দ্রীয়ভাবে কঠোর সিদ্ধান্ত না হলে আমরা গণপদ্যতাগ করব।’

নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘আমি অসুস্থ বিধায় পত্রিকা দেখতে পারিনি, তবে বিষয়টি শুনেছি। জোহা ভাই ছিলেন আমার রাজনৈতিক গুরু। যদি আইভী এমন বক্তব্য দিয়ে থাকে, তবে সেটা নিন্দনীয়।’

পিএনএস/আনোয়ার

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech