রসিক ভোটারদের দ্বারে দ্বারে প্রার্থীরা

  


পিএনএস ডেস্ক: ভোটের আর মাত্র কয়েকদিন বাকি। শেষ মুহূর্তের প্রচারে ব্যস্ত হয়ে উঠেছেন রংপুর সিটি নির্বাচনের মেয়র ও ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থীরা। নিজেদের শক্তিশালী এলাকাগুলোতে ভোট ধরে রাখার পাশাপাশি দুর্বল এলাকাগুলো থেকে ভোট পেতে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে যাচ্ছেন প্রার্থীরা।

রসিক মেয়র পদে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে আওয়ামী লীগের সরফুদ্দিন আহমেদ ঝন্টু, বিএনপির কাওসার জামান বাবলা ও জাতীয় পার্টির মোস্তফিজার রহমান মোস্তফার মধ্যে। তিন প্রার্থীই শেষ মুহূর্তের প্রচারে মড়িয়া হয়ে উঠেছেন। নানা প্রতিশ্রুতির ফুলঝুড়িতে ভোটারদের কাছ থেকে সমর্থন আদায়ের চেষ্টা করছেন। রসিক নির্বাচনের ৩৩ ওয়ার্ডে একই চিত্র দেখা গেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, আওয়ামী লীগের সরফুদ্দিন আহমেদ ঝন্টু যেসব ওয়ার্ডে অবস্থা খারাপ দেখছেন সেখানেই ছুটে যাচ্ছে তার নেতাকর্মীরা। রংপুর সিটি নির্বাচনে রেকর্ড উন্নয়নের পরও সদ্যবিদায়ী হওয়ায় বহু ভোটারের মধ্যেই তার প্রতি বিরূপ মনোভাব দেখা গেছে। খারাপ অবস্থার ওয়ার্ডগুলোতে ঝন্টু নিজে উপস্থিত হয়ে ভোটারদের বোঝানোর চেষ্টা করছেন।

তিনি বলছেন, বিভিন্ন সীমাবদ্ধতার কারণে গতবার যে উন্নয়ন হয়নি, এবার মেয়র নির্বাচিত হলে সেগুলোও বাস্তবায়ন করবেন। ভালো ওয়ার্ডগুলোতে নিজের অবস্থান ধরে রাখার অব্যাহত চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন ঝন্টু।

ভোটারদের টানতে মরিয়া বিএনপি প্রার্থী কাওসার জামান বাবলাও। স্থানীয় সূত্রমতে, নগরের মহীগঞ্জে বাবলার অবস্থান বেশ ভালো। সেখানকার ১৮ ওয়ার্ডে বারবার ধরণা দিচ্ছেন বাবলা। অবস্থান ধরে রাখার চেষ্টায় মরিয় বিএনপির প্রার্থী। এছাড়া অন্যান্য ওয়ার্ডের ভোটারদের টানতেও বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী নিয়ে জোর প্রচার চালাচ্ছেন বাবলা।

স্থানীয় সূত্রমতে, এখনো পর্যন্ত প্রচার ও সমর্থনে সবচেয়ে ভালো অবস্থানে জাতীয় পার্টির প্রার্থী মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা। নিজ এলাকায় তার অবস্থান অন্য প্রার্থীদের তুলনায় বেশ সংহত। এসব এলাকার ভোটার ধরে রাখতে প্রায় প্রতিদিনই প্রচার চালাচ্ছেন। আবার তুলনামূলক কম উন্নয়ন হয়েছে এমন ওয়ার্ডগুলোতে জোর প্রচার চালাচ্ছেন মোস্তফা। লক্ষ্য সদ্যবিদায়ী মেয়রের প্রতি ক্ষুব্ধ ভোটারদের নিজের পক্ষে টানা।

অবশ্য প্রায় সব মেয়র প্রার্থীদের নেতাকর্মীদের সূত্রে একটি অভিযোগ পাওয়া গেছে, দলীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থীরা শুধু নিজেদের ভোট গোছানোতেই ব্যস্ত। দলীয় মেয়র প্রার্থীদের জন্য তাদের কোনো প্রচার নেই। এ কারণেই অনেক ওয়ার্ডে দলীয় মেয়র প্রার্থী পিছিয়ে পড়ছে বলে দাবি মেয়র প্রার্থীদের।

পিএনএস/আনোয়ার

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech