এবারের কর্মসূচি হবে 'লাস্ট অ্যান্ড ফাইনাল': মওদুদ

  

পিএনএস : নিরপেক্ষ সরকারের দাবি আদায়ে এবার সময় বুঝে কর্মসূচি দেয়া হবে উল্লেখ করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেছেন, কর্মসূচি দেওয়া হবে সময় বুঝে। যাতে করে আমাদেরকে (বিএনপি) পিছিয়ে চলে যেতে না হয়। এই কর্মসূচি হবে 'লাস্ট অ্যান্ড ফাইনাল কর্মসূচি'। আর এই কর্মসূচির মাধ্যমে দেশে গণজোয়ার সৃষ্টি হবে, সেই জোয়ারে নৌকা ভেসে যাবে।

রোববার জাতীয় প্রেসক্লাবে স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদের ভূইয়া জুয়েল ও সাংগঠনিক সম্পাদক ইয়াসীন আলীর মুক্তি দাবি উপলক্ষে আয়োজিত এক প্রতিবাদ সভায় তিনি এসব কথা বলেন। স্বেচ্ছাসেবক দলের উদ্যোগে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সরকারকে উদ্দেশ্য করে মওদুদ আহমদ বলেন, আমরা স্পষ্ট ভাষায় বলতে চাই, যতই অত্যাচার ও নির্যাতন করেন না কেন। যতই আমাদের নেত্রীকে অবরুদ্ধ রাখার ব্যবস্থা করেন না কেন। এমন একদিন আসবে যেইদিন আপনারা বাধ্য হবেন জনগণের দাবি মেনে নিতে।

বেগম খালেদা জিয়াকে কোর্টে জিজ্ঞাসা করেছিলাম তিনি চিন্তিত কি না উল্লেখ করে বিএনপির এই শীর্ষ নেতা বলেন, তিনি (খালেদা জিয়া) বললেন, আমি এগুলো পরোয়া করি না। এই ধরনের শক্ত মনের নেত্রী আমাদের আছে। সুতরাং আমাদের হতাশ হওয়ার কোন কারণ নেই।

৩০ জানুয়ারী হযরত শাহজালাল (রহ.) মাজার জিয়ারতের পর সিলেটে সমাবেশের মধ্যে দিয়ে নির্বাচনী প্রচারনায় নামছেন প্রধানমন্ত্রী উল্লেখ করে মওদুদ আহমদ বলেন, এটা তো কাপুরুষতার লক্ষ্মণ। বিরোধী দলকে বন্দি অবস্থায় রেখে আপনারা (ক্ষমতাসীন দল) নির্বাচনের প্রচারণা চালাবেন। আমাদেরকেও সেই সুযোগ দিন। ভোট চাওয়ার সুযোগ দিন। তাহলেই বুঝবো যে আপনারা একটা প্রতিদ্বন্দ্বীতামূলক সবার অংশগ্রহনের মাধ্যমে একটি নির্বাচন চান।

তিনি বলেন, আমাদেরকে হাজার হাজার নেতাকর্মীকে জেলখানায় রেখে দেশের প্রধানমন্ত্রী হয়ে নির্বাচনের দশ মাস আগে আপনি প্রচারণায় নামবেন। নির্বাচন কমিশন যদি এটা বন্ধ করতে না পারেন তাহলে নির্বাচন কমিশনকে পদত্যাগ করতে হবে। এই ধরনের দুর্বল নির্বাচন কমিশন আমরা চাই না। এখনই যদি এসবের সম্মতি দেয়া হয়, তাহলে জাতীয় নির্বাচনের সময় কি হবে তা সবাই জানে।

নির্বাচন কমিশনকে উদ্দেশ্যে করে তিনি বলেন, আমি বলতে চাই সরকারপ্রধানকে নির্বাচনী প্রচারণা যদি করতে দেয়া হয়, তাহলে আমাদেরকেও করতে দিতে হবে। আর যদি আমাদের করতে না দেয়া হয় তাহলে সরকারপ্রধানেরও কোন অধিকার নেই প্রচারণা শুরু করার।

সভায় বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, যুগ্ম মহাসচিব হাবিব-উন-নবী খান সোহেল, তথ্য বিষয়ক সম্পাদক আজিজুল বারী হেলাল প্রমুখ বক্তব্যে রাখেন।

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech