`খালেদা জিয়ার মুক্তি ছাড়া সংকট সমাধান হবে না'

  



পিএনএস ডেস্ক: বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আব্দুল মঈন খান বলেছেন, স্বীকার করুক আর নাইবা করুক আজকে রাজনীতিতে অচলাবস্থার সৃষ্টি করেছে সরকার। সেখান থেকে তারা এক পা বেরোতে পারবে না। কিছু কিছু মানুষের অভ্যাস আছে অসুখ হলে স্বীকার করতে চায় না।

তিনি বলেন, আজকে সরকারেরও সেই রোগ হয়েছে। এই অবস্থা থেকে উত্তরণের একটি মাত্র উপায় হচ্ছে খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে হবে। তাকে মুক্তি দিয়ে এ দেশে একটি সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে হবে।

শুক্রবার রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। ‘খালেদা জিয়ার মুক্তি ও নিরপেক্ষ নির্বাচন: সংকট ও উত্তরণের একমাত্র উপায়’ শীর্ষক সভার আয়োজন করে নাগরিক অধিকার আন্দোলন ফোরাম।

সংগঠনটির উপদেষ্টা সাঈদ আহমেদ আসলামের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমের পরিচালনায় আরও বক্তব্য দেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ, জাসাসের শাহরিয়া ইসলাম শায়লা প্রমুখ।

বর্তমান রাজনৈতিক সংকটকে দাবা খেলার সঙ্গে তুলনা করে মঈন খান বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার যে রাজনৈতিক অচলাবস্থা সৃষ্টি করেছে এখান থেকে তারা এক পা বেরোতে পারবে না। আপনারা যদি দাবা খেলা জেনে থাকেন কোনো কোনো সময়ে এই খেলার এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয় যাকে ইংরেজিতে বলা হয় স্টেলমেন্ট।

তিনি বলেন, স্টেলমেন্ট এমন এক অবস্থা দুই পক্ষ এক পক্ষকে পরাজিতও করতে পারছে না, আবার নতুন চালও দিতে পারছে না। এই পক্ষ আটকে গেছে, অন্যপক্ষও আটকে গেছে। আজকে সরকারকে বুঝতে হবে তারা যতই রাজনীতির দাবার গুটি চালানোর চেষ্টা করুন না কেন, তারা আজকে স্টেলমেন্টে আটকে গেছেন।

আগামীতে ‘একতরফা’ নির্বাচন সরকার করলে তার পরিণতি শুভ হবে না উল্লেখ করে মঈন খান বলেন, আমার প্রশ্ন হচ্ছে- ২০১৪ সালেও নির্বাচন দিয়ে কি সরকার পরবর্তী ৫ বছরে রাজনৈতিক অচলাবস্থা দূর করতে পেরেছে, পারেনি।

তিনি বলেন, আজকেও যদি তারা মনে করে সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতার কারণে আবারো তাদের ইচ্ছামতো একটি নির্বাচন ডিসেম্বরে করবেন। আমি সরকারকে বলে দিতে চাই এই ডেডলক থেকে তারা কোনো অবস্থায় বেরোতে পারবে না।

বিএনপির এই নেতা বলেন, সংবিধানের জন্য মানুষ নয়, মানুষের জন্য সংবিধান-এই সত্য সরকারকে বুঝতে হবে। সংবিধানের দোহাই দিয়ে জনগণকে দাসত্ব বানানো যাবে না। মানুষের প্রয়োজনে আমরা সংবিধান তৈরি করি। মানুষের প্রয়োজনে সংবিধান লঙ্ঘন করে আবার নতুন করে সংবিধান প্রণয়ন করে। এর ইতিহাস শুধু বাংলাদেশে নয়, পৃথিবীর বহু দেশে আছে।

পিএনএস/হাফিজুল ইসলাম

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech