আপিলে বৈধতা পেলো ২৪৩ প্রার্থী

  

পিএনএস ডেস্ক: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে রিটার্নিং কর্মকর্তা কর্তৃক বাতিল হওয়া ২৪৩ জন তাদের প্রার্থিতা ফেরত পেয়েছেন। নির্বাচন কমিশনে টানা ৩ দিন শুনানির শেষ দিন (শনিবার) ৮৫ জন প্রার্থিতা ফিরে পান। এর আগে প্রথম দিন বৃহস্পতিবার শুনানিতে ৮০ জন প্রার্থিতা পেয়েছিলেন, আর শুক্রবার পান ৭৮ জন। তবে বহুল আলোচিত বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া তার প্রার্থিতা ফেরত পাননি। দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি হওয়ায় ৩ আসনেরই তার প্রার্থিতা বাতিল বহাল রেখেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

প্রতিদিন সকাল ১০টায় নির্বাচন কমিশন ভবনের অস্থায়ী এজলাসে এ শুনানি হয়। প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদার নেতৃত্বে চলে শুনানি। নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার, মো. রফিকুল ইসলাম, বেগম কবিতা খানম ও ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদাত হোসেন চৌধুরী ছাড়াও ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

শেষ দিন যাদের আবেদন মঞ্জুর হয়েছে
নঈম জাহাঙ্গীর (জামালপুর-৩), আব্দুল কাইয়ুম খান (নেত্রকোনা-১), চৌধুরী মুহাম্মাদ ইসহাক (ময়মনসিংহ-৬), শাহ মফিজ ও মহিউদ্দিন মোল্লা, (ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়া-২), সৈয়দ মাহমুদুল হক (ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়া-৩), মো. মোরশেদ সিদ্দিকী (চট্টগ্রাম-৯), জেড খান মো. রিয়াজ উদ্দিন (চাঁদপুর-৪), নতুন কুমার চাকমা (খাগড়াছড়ি), নাসির উদ্দিন (চট্টগ্রাম-৫), মামাচিং (বান্দরবান), এম মোরশেদ খান (চট্টগ্রাম-৮), মো. আবু বকর সিদ্দিকি ও নাদিম মোস্তফা (রাজশাহী-৫), আবু সাঈদ চাঁদ (রাজশাহী-৬), আলেয়া বেগম (জয়পুরহাট-১), মো. আলী আলম (সিরাজগঞ্জ-৫), মুজিবুর রহমান (রাজশাহী-১), ইবাদুল খালেসী (যশোর-৫), মো. তছির উদ্দিন (কুষ্টিয়া-৪), মো. সাজেদুর রহমান (যশোর-১), লিটন মোল্লা (যশোর-৪), রবিউল ইসলাম (যশোর-৫), ফকির মাহবুব আনান স্বপন (টাঙ্গাইল-১), শওকত আজিজ (ঢাকা-১৭), মো. কফিল উদ্দিন (ঢাকা-১৯), রহুল আমিন ভূঞা (লক্ষ্মীপুর-২), মাসুদুল আলম বাবলু (চট্টগ্রাম-৫), এ কে এম জাবির (ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়া-৬), নারায়ণ রক্ষিত (চট্টগ্রাম-১৩), মো. আকবর আমিন বাবুল (কুমিল্লা-৩), কাজী নাজমুল হোসেন (ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়া-৫), মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ (যশোর-৪), নিজাম উদ্দিন অমিত (যশোর-৫), সৈয়দ বিপ্লব আজাদ (যশোর-৩), এম আছাদুজ্জামান ও ফিরোজ শাহ (যশোর-২), আনছারুল হক (হবিগঞ্জ-৪), আনোয়ার উদ্দিন বোরহান (সিলেট-১), মো. নুরুল আমিন ৯ (সিলেট-৫), আহম্মেদ বাবের বিল্লাহ (মুন) (নীলফামারী-১), আব্দুল ওয়াহেদ (নীলফামারী-৩), বেলাল হোসেন ৯ রংপুর-৪), ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা (ঢাকা-১৭), মেরাজ উদ্দিন মোল্লা (রাজশাহী-৩)। মো. মাহফুজুর রহমান (নারায়ণগঞ্জ -১), ইসমাইল হোসেন (ঝিনাইদহ-৩), মো. আবদুল খালেক সরকার (কুষ্টিয়া-১), মো. আলফাজ হোসেন (রাজশাহী-১), মো. হাবিবুল্লাহ (কক্সবাজার-১), মওলানা মুজিবুর রহমান (ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়া-৩), ওম্মে ককুলসুম সুলতানা লীনা (বান্দরবান), সৈয়দ গোলাম মহিউদ্দিন (কুমিল্লা-৬), মোহাম্মদ আসলাম চৌধুরী (চট্টগ্রাম-৪) সহ অন্তত ৮৫ জন।
২ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র বাছাইয়ে ২ হাজার ২৭৯টি মনোনয়নপত্র বৈধ ও ৭৮৬টি অবৈধ বলে ঘোষণা করেন সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তারা। এগুলোর মধ্যে বিএনপির ১৪১টি, আ’লীগের ৩টি এবং জাতীয় পার্টির ৩৮টি বাতিল হয়। আর স্বতন্ত্র প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র বাতিল হয় ৩৮৪টি।

একাদশ নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন আজ (৯ ডিসেম্বর) । ১০ ডিসেম্বর প্রতীক বরাদ্দ। আর ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে ৩০ ডিসেম্বর।

পিএনএস/হাফিজুল ইসলাম

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech