মিনুকে লিটনের ৭২ ঘণ্টার আল্টিমেটাম

  

পিএনএস ডেস্ক : জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে আপত্তিকর বক্তব্য দেয়ায় বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনুকে জাতির কাছে ক্ষমা চাইতে ৭২ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দেয়া হয়েছে। রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন তাকে এ আল্টিমেটাম দেন।

ক্ষমা না চাইলে রাজশাহী সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র মিজানুর রহমান মিনুর বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করা হবে বলেও ঘোষণা দিয়েছেন বর্তমান মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন। মঙ্গলবার বিএনপির রাজশাহী বিভাগীয় সমাবেশে বঙ্গবন্ধু এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে অশোভন ও উস্কানিমূলক বক্তব্য দেওয়ার প্রতিবাদে মহানগর আওয়ামী লীগ আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশে তিনি এ ঘোষণা দেন।

বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় নগরীর কুমারপাড়ায় মহানগর আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি নগরীর গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে সাহেববাজার জিরোপয়েন্টে গিয়ে শেষ হয়। এরপর সেখানে একটি প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন।

তিনি বিএনপি নেতা মিনুকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘আপনি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে যে ধৃষ্টতাপূর্ণ বক্তব্য দিয়েছেন তা অবিলম্বে প্রত্যাহার করে রাজশাহীবাসীর সামনে ক্ষমা না চাইলে আগামী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে আপনার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করা হবে। এরপর বিএনপি সমাবেশের নামে যদি কোন অশালীন ও দেশবিরোধী বক্তব্য দিয়ে রাজনৈতিক পরিবেশকে অশান্ত করার চেষ্টা করে তাদের তাৎক্ষণিকভাবে প্রতিহত করার জন্য দলীয় নেতাকর্মীদের আহ্বান জানান।

খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, ‘বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশে সাবেক মেয়র মিজানুর রহমান মিনুসহ বিএনপির নেতারা বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে কটূক্তি ও অশালীন বক্তব্য দিয়ে রাজনৈতিক সকল শিষ্টাচার বহির্ভূত ও দায়িত্ব জ্ঞানহীনতার পরিচয় দিয়েছেন। তাদের রাজনৈতিক শিষ্টাচার আশা করা যায় না।’

তিনি আরও বলেন, ‘ভেবেছিলাম বিভাগীয় সমাবেশের নামে বিএনপি তাদের রাজনৈতিক কর্মসূচি নিয়ে জনগণের সামনে উপস্থিত হবে। কিন্তু কি দেখলাম? তারা দেশ, জাতির পিতা ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কটূক্তিমূলক বক্তব্য দিয়েই ক্ষান্ত হননি, তারা পচাত্তরের ১৫ আগস্টের মতো কালো অধ্যায় সৃষ্টি হুঙ্কার দেয়। সেই দিন নেই, এরপর রাজনৈতিক কর্মসূচির নামে কোন উস্কানিমূলক বক্তব্য দিয়ে শান্তির শহর রাজশাহীর পরিবেশ অশান্ত করার চেষ্টা করা হলে জনগণকে সাথে নিয়ে তার দাঁত ভাঙ্গা জবাব দেওয়া হবে।’

সমাবেশে নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকারও বক্তব্য দেন। সমাবেশ সঞ্চালনা করেন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আজাদ। এ সময় নগর আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে দুপুরে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতেও মিজানুর রহমান মিনুকে জাতির সামনে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানান রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন ও সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার।

মঙ্গলবার বিকালে রাজশাহী নগরীর একটি কমিউনিটি সেন্টার চত্বরে বিএনপি বিভাগীয় সমাবেশ করে। সেখানে দলটির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু ও চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনুসহ অন্য নেতারা বক্তব্য দেন। সেই সমাবেশে মিনু প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘আজ রাত, কাল আবার সকাল নাও হতে পারে। ৭৫ মনে নাই?’ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়েও আপত্তিকর কথা বলেন। সরকার উৎখাতের প্রশ্নে মিনু বলেছিলেন, ‘বঙ্গবন্ধু কবর থেকে উঠে আসলেও এই সরকারকে রক্ষা করতে পারবে না।’

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন