পর্তুগালের নাগরিকত্ব পেলেন কৌতিনহো

  

পিএনএস ডেস্ক: শিরোনাম দেখেই ব্রাজিল ফুটবল ভক্তরা আঁতকে উঠতে পারেন। দিয়েগো কস্তার মতো তাহলে কি নিজের দেশ ছাড়তে চলেছেন ফিলিপ কৌতিনহো? দিয়েগো কস্তা যেমন স্পেনের হয়ে খেলার জন্য নাগরিকত্ব স্প্যানিশ হয়ে গিয়েছিলেন এবং ব্রাজিলের পরিবর্তে লা রোজাদের হয়ে খেলেন এখন।

তবে তেমন কোনো উদ্দেশ্য নয় ফিলিপ কৌতিনহোর। ব্রাজিল ফুটবল দলের অন্যতম সেরা এই সদস্যের পর্তুগালের নাগরিকত্ব নেয়ার মূল কারণই হচ্ছে নিজের ক্লাব বার্সেলোনাকে দারুণ এক সমস্যা থেকে রক্ষা করা।

লা লিগায় চলতি মৌসুমে মধুর এক সমস্যায় পড়তে যাচ্ছিল বার্সেলোনা। কারণ লিগের নিয়ম হচ্ছে, ইউরোপিয় ইউনিয়নের বাইরে তিনজনের বেশি ফুটবলারকে একাদশে রাখা যাবে না। কিন্তু এবার বার্সেলোনা দলটির বিদেশি ফুটবলারদের অধিকাংশই লাতিন আমেরিকার। চিলির আরতুরো ভিদাল, ব্রাজিলের ম্যালকম, রাফিনহা, আর্থার এবং কৌতিনহো। কাকে রেখে কাকে দলে নেবেন বার্সা কোচ আর্নেস্তো ভালভার্দে?

এই সমস্যা কাটাতেই ফিলিপ কৌতিনহো পর্তুগালের নাগরিকত্ব নিয়ে নিলেন। পেয়ে গেলেন পর্তুগিজ পাসপোর্ট। তবে কৌতিনহো এমনিতেই পর্তুগালের জামাই। কারণ, তার স্ত্রী আইনি হচ্ছেন পর্তুগিজ নাগরিক। তিন বছর আগে পর্তুগালের জামাই হয়েছিলেন কৌতিনহো।

স্প্যানিশ সুপার কাপের ৪২ ঘণ্টা আগে পর্তুগিজ নাগরিকত্বের সমস্ত কাগজপত্র হাতে পেয়ে যান। সুতরাং, এখন কৌতিন বার্সায় খেলবেন ব্রাজিলের নাগরিক হিসেবে নয়, পর্তুগালের নাগরিক হিসেবে। তাকে দলে রেখেই বার্সা কোচ ভালভার্দে ইউরোপীয় ইউনিয়নের বাইরে তিনজন ফুটবলারকে দলে নিতে পারবেন এখন।

শুধু তাই নয়, ফিলিপ কৌতিনহো এই মৌসুম থেকে খেলবেন নিজের প্রিয় ৭ নম্বর জার্সি পরে। বার্সার পক্ষ থেকে তার হাতে তুলে দেয়া হয়েছে ৭ নম্বর জার্সিটি।

পিএনএস/হাফিজুল ইসলাম

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech