যে কারণে শাস্তি পেল মিরাজ

  


পিএনএস ডেস্ক:ফেক ফিল্ডিং করেছেন রাজশাহীর অধিনায়ক মেহেদী হাসান মিরাজ। এর জন্য গুনেছেন জরিমান। নিজের দোষ স্বীকার করে নিয়েছেন তিনি । বাংলাদেশের প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে ফেক ফিল্ডিংয়ের জন্য পেনাল্টি পেলেন মিরাজ।

রবিণয(১৩ জানুয়ারি) দিনের প্রথম ম্যাচে মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হয় রাজশাহী ও রংপুর। এ ম্যাচে ফিল্ডিংয়ের ভান করায় ৫ রানের জরিমানা করা হয় মিরাজকে। বাংলাদেশের ক্রিকেটে এই প্রথম ফেক ফিল্ডিংয়ে জরিমানা গুনলো কোনো দল। বল টেম্পারিংয়ের শাস্তিও ৫ রানের জরিমানা। বিপিএলে রাজশাহী খুব একটা ভালো করতে পারছিল না। প্রথম তিন ম্যাচের মধ্য দলটির জয় মাত্র একটিতে। রবিবার ছিল চতুর্থ ম্যাচ।

ইনিংসের দ্বাদশ ওভারে মিরাজ নিজের বলেই স্কয়ার লেগের দিকে ছুটে যান। বল থেকে দূরে থাকতেই স্লাইড করেন। ততক্ষণে সুইপার পজিশন থেকে দৌড়ে এসে ফিল্ডার বল কুড়িয়ে পাঠিয়ে দেন। সেই বলে ব্যাটসম্যান রুশো ১ রান নেন। হয়তো তিনি ২ রানও নিতে পারতেন। কিন্তু মিরাজের ফেক ফিল্ডিং দেখেই হয়তো আর রান নেননি। আম্পয়ারের মনে হয়েছে, ব্যাটসম্যানকে বিভ্রান্ত করার জন্যই ফেক ফিল্ডিং করেছেন মিরাজ। বলে রাখা ভালো, জরিমানার রান যোগ করা হয় রংপুরের স্কোরকার্ডে, অতিরিক্ত পাশে।

বেশিদিন হয়নি এই আইনটি পাস করা ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বরে আইসিসি এই আইনটি পাস করে। এর আগে ক্রিকেটের আইনপ্রণেতা এমসিসি আইনটি অনুমোদন করে। ক্রিকেট আইনের ৪১.৫ ধারা অনুযায়ী ফিল্ডিংয়ের ভান করার শাস্তি রাখা হয় ৫ রানের জরিমানা।

মিরাজ দোষ স্বীকার করে নিয়েছেন। ম্যাচ শেষের সংবাদসম্মেলনে রাজশাহীর অধিনায়ক জানান, ফেক ফিল্ডিং তিনি জেনে বুঝেই করেছেন। ক্রিকেটের এই আইনটা তারা জানাই ছিল! তিনি বলেন, আমার ভুল হয়ে গেছে। বুঝতে পারছিলাম না কি করব। তাই ফলস ডাইভ দিয়েছিলাম।

প্রসঙ্গত, প্রথম দল হিসেবে এ আইনে সাজা পায় কুইন্সল্যান্ড। ২০১৭ সালে অস্ট্রেলিয়ার ঘরোয়া জেএলটি ওয়ানডে কাপে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট একাদশের বিপক্ষে কুইন্সল্যান্ডকে এই শাস্তি দেওয়া হয়। সাজা পাওয়া দল নিজেরাই এই আইনের পক্ষে ছিল।

পিএনএস/এএ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech