ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে রেকর্ড গড়তে যাচ্ছেন তারা

  

পিএনএস ডেস্ক : আগামী ৩০ মে দ্যা ওভালে ইংল্যান্ড ও দক্ষিণ আফ্রিকার ম্যাচের মধ্য দিয়ে পর্দা উঠবে ওয়ানডে বিশ্বকাপ ক্রিকেটের।বিশ্বকাপ সামনে রেখে মাশরাফি বিন মর্তুজাকে অধিনায়ক এবং সাকিব আল হাসানকে সহ-অধিনায়ক করে ১৫ সদস্যের দল ঘোষণা করেছে বিসিবি।

ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিতব্য বিশ্বকাপে এক রেকর্ড গড়তে যাচ্ছেন মাশরাফি বিন মর্তুজা, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম ও তামিম ইকবাল। এটি তাদের চতুর্থ বিশ্বকাপ।

এক সঙ্গে বাংলাদেশের পক্ষে সর্বোচ্চ বিশ্বকাপ খেলার রেকর্ড গড়তে যাচ্ছেন এই 'ফ্যান্টাস্টিক ফোর'।

এর মাধ্যমে বাংলাদেশের হয়ে সবচেয়ে বেশি তিনটি বিশ্বকাপ খেলার তালিকায় পেছনে পড়ে যাচ্ছেন বাঁ-হাতি স্পিনার মোহাম্মদ রফিক ও ডান-হাতি ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ আশরাফুল। রফিক ও আশরাফুল ৩টি করে বিশ্বকাপ পখলেন। রফিক ১৯৯৯, ২০০৩ ও ২০০৭ সালে এবং অ্যাশ ২০০৩, ২০০৭ ও ২০১১ সালে বিশ্বকাপে অংশ নেন।

২০০৩ সালে প্রথম বিশ্বকাপে খেলার সুযোগ পান বাংলাদেশের বর্তমান অধিনায়ক মাশরাফি। এরপর ২০০৭, ২০১৫ আসরে খেলেন তিনি। ২০১১ সালে দেশের মাটিতে অনুষ্ঠিতব্য বিশ্বকাপে খেলা হয়নি ম্যাশের। ওই আসরে খেলতে পারলে, গত বিশ্বকাপেই বাংলাদেশের পক্ষে সবচেয়ে বেশি বড় আসরে খেলার রেকর্ড গড়তেন তিনি।

বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত ১৬টি ম্যাচে ব্যাট হাতে ম্যাশ করেছেন ১৬৫ রান ও বল হাতে নিয়েছেন ১৮ উইকেট। তার নেতৃত্ব ২০১৫ বিশ্বকাপে অংশ নিয়ে কোয়ার্টারফাইনালে উঠেছিল বাংলাদেশ। তবে অধিনায়ক হিসেবে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ বিশ্বকাপ খেলতে যাচ্ছেন তিনি।

আগামী বিশ্বকাপে মাশরাফির ডেপুটি সাকিব ২০০৭, ২০১১ ও ২০১৫ আসরে খেলেছিলেন। ২০১১ সালের আসরে দলকে নেতৃত্ব দেন সাকিব। বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত ২১টি ম্যাচে সাকিব ব্যাট হাতে করেছেন ৫৪০ রান ও বল হাতে নিয়েছেন ২৩ উইকেট।

সাকিবের মতো বিশ্বকাপের মঞ্চে ২১টি করে ম্যাচ খেলেছেন মুশফিকুর রহিম আর তামিম ইকবাল। যা বাংলাদেশের পক্ষে সর্বোচ্চ ম্যাচ খেলার রেকর্ড। মুশফিক ব্যাট হাতে ৫১০ রান ও ১৮টি ডিসমিসাল করেছেন। তামিম ব্যাট হাতে ৪৮৩ রান। কিন্তু এদের কেউই বিশ্বকাপের মঞ্চে সেঞ্চুরি করতে পারেননি।

এদিকে বিশ্বকাপে বাংলাদেশের দু’টি সেঞ্চুরি রয়েছে। ২০১৫ বিশ্বকাপে দু’টিই করেছেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। মাহমুদুল্লাহর জন্য আগামী আসরটি হবে তৃতীয় বিশ্বকাপ। অর্থাৎ বাংলাদেশের পক্ষে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বিশ্বকাপ খেলার পথে রফিক-আশরাফুলের পাশে বসবেন মাহমুদুল্লাহ।

বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ৬টি করে বিশ্বকাপ খেলার বিশ্বরেকর্ড দখলে রেখেছেন পাকিস্তানের জাভেদ মিয়াঁদাদ ও ভারতের শচীন টেন্ডুলকার। মিয়াদাদ- ১৯৭৫, ১৯৭৯, ১৯৮৩, ১৯৮৭, ১৯৯২ ও ১৯৯৬ সালে এবং টেন্ডুলকার- ১৯৯২, ১৯৯৬, ১৯৯৯, ২০০৩, ২০০৭ ও ২০১১ সালের বিশ্বকাপ খেলেন।

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech