চেন্নাইয়ানের বিপক্ষে আজ আবাহনীর ‘ফাইনাল’

  


পিএনএস ডেস্ক: আরো দুই ম্যাচ বাকী। এর একটি হোম। বাকীটি অ্যাওয়ে। তবে ওই দুই ম্যাচ ঢাকা আবাহনীর জন্য স্রেইফ নিয়মরক্ষার হতে পারে। আবার এগিয়ে যাওয়ার প্রেরনাও। বাংলাদেশী এই ক্লাবটির ক্ষেত্রে কোনটি প্রযোজ্য এর উত্তর মিলবে বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে বুধবার সন্ধ্যা সাতটা গড়িয়ে রাত পৌনে নয়টা নাগাদ। আকাশী নীল শিবির কি অতীতের মতোই ব্যর্থতার বৃত্তে থাকবে না কি এবার ব্যতিক্রমের জন্ম দিতে যাচ্ছে তা জানারই অপেক্ষায়।

এবারের এএফসি কাপে বুধবার তাদের মহাগুরুত্বপূর্ন ম্যাচ চেন্নাইয়ান এফসির বিপক্ষে। ‘ই’ গ্রুপ থেকে সেরা হয়ে নক আউট পর্বে যাওয়ার আশা জিইয়ে রাখতে এই খেলায় তিন পয়েন্ট মানে জয় চাই ই চাই বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ এবং ফেডারেশন কাপ জয়ীদের। হারলে সব আশার অপমৃত্যু। ড্র করলে একেবারেই ক্ষীন সম্ভাবনা। তাতেও আবার যদি নির্ভরতা।

তাই চেন্নাইয়ান এফসির বিপক্ষে আবাহনীর বুধবারের এই ম্যাচ ফাইনাল তূল্য। দলের পর্তূগীজ কোচ মারিও লেমস এমনটাই জানালেন। অন্য দিকে এই খেলায় তিন পয়েন্ট পেলে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পথে এক পা দিয়েই ফেলবে ভারতীয় ক্লাবটি। যদিও আবাহনীর বিপক্ষে জেতাটা কঠিন বলে উল্লেখ করলেন চেন্নাইয়ানের কোচ জন গ্রেগরিও। তিন খেলায় ৭ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে চেন্নাইয়ান। সমান খেলায় ৪ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে আবাহনী। বুধবার নেপালের মাঠে অন্য ম্যাচে মিনার্ভা পাঞ্জাবের মুখোমুখি নেপালের মানাং মাসিংয়ান্দি। মিনার্ভার পয়েন্ট তিন। মানাংয়ের এক।

প্রতি দল ম্যাচ বাই ম্যাচ উন্নতি করে। সেখানে উল্টো ঢাকা আবাহনী। তাদের ক্রমশ: অধপতন। মানাংয়ের বিপক্ষে ১-০তে জয়ের পর ২-২ এ ড্র মিনার্ভান সাথে। এরপর সর্বনাশ করেছে চেন্নাইয়ানের বিপক্ষে শেষ ম্যাচে ০-১ গোলে হেরে। যা তাদের দেয়াল পীঠ ঠেকিয়ে দিয়েছে। এখন ঘুরে দাঁড়িয়ে ভারতীয় আইএসএল এর সাবেক চ্যাম্পিয়ন দলটির সমপর্যায়ে আসতে জয়ের বিকল্প নেই। সানডে , জীবন, বেলফোর্ডদের অবস্থা এমনই যে তাদের এখন টানা তিন ম্যাচেই জিততে হবে। সবার আগের কাজটি করতে হবে আজ।

কিন্তু এই মিশনে তাদের প্রধান বাধা ইনজুরি। ডিফেন্ডার তপু বর্মন ও মিডফিল্ডার আতিকুর রহমান ফাহাদের এই সিজন শেষ হয়ে যাবে পুরোপুরি সুস্থ হতে। পুরোপুরি ফিট নন বাদশা এবং ওয়েলিংটনও। তপু এবং বাদশার ইনজুরি দলকে এতোটাই ভোগাচ্ছে যে একেক দিন স্টপার ব্যাক পজিশনে কোচকে মাঠে নামাতে হচ্ছে একেক জুটিকে। রক্ষন প্রাচীরের এই দূর্দশাকে সামনে এনেই মারিও লেমস বললেন, ‘চেন্নাইয়ানের বিপক্ষে জয়ের আত্মবিশ্বাস আছে । তবে শতভাগ নয়।’ বললেন, দেখুন ওয়েলিংটন হলো মিডফিল্ডার। এরপরও তাকে খেলাতে হচ্ছে রক্ষনভাগে।

এরপরও তিনি জানালেন, ‘আমাদের এই ম্যাচে জিততেই হবে। এটা একবারে ফাইনালের সমান। হারলে যে বিদায় টুর্নামেন্ট থেকে।’ এই দলটির কাছে গত ম্যাচে হার প্রসঙ্গে বললেন, আমরা গোল মিস করে আর ভালো খেলেও আত্মঘাতী গোলে হেরেছি। আবাহনীর কাগজে কলমে এগিয়ে রাখলেন ভারতীয় দলটির ইংলিশ কোচ জন গ্রেগরিও। গতকাল ম্যাচ পূর্ব সংবাদ সম্মেলনে উল্লেখ করলেন, ‘আমাদের জন্য সবচেয়ে কঠিন ম্যাচ এটি। গত ম্যাচে আমরা আবাহনীকে হারিয়েছিলাম ঠিকই তা ভাগ্যের জোরে। আবাহনী খুবই ভালো দল। তাদেরকে হারানোটা বেশ কঠিন।’

টানা তিন বার এএফসি কাপে খেলতে যাওয়া দলটি সম্পর্কে আরো বললেন, আবাহনীতে লম্বা থ্রো করার মতো একজন আছেন। এ থেকে গোল পাওয়ার মতো লম্বা লম্বা বেশ কয়েকজন খেলোয়াড় রয়েছেন। তাদের আক্রমনভাগও খুবই ভয়ংকর। সাথে এটাও উল্লেখ করলেন, ফের আবাহনীকে হারালে আমরা গ্রুপ চ্যাম্পিয়নের পথে এগিয়ে যাবো। যদিও তা সহজ নয়।

শীর্ষে থাকা চেন্নাইয়ানের আজই প্রথম হোম ম্যাচ। তারা আগের তিন ম্যাচ খেলেছে নিজ দেশে। তবে চেন্নাইয়ে নয়। বহু দূরের শহর আহমেদাবাদে। তাই আহমেদাবাদকে হোম বলতে নারাজ জন গ্রেগরী।

আবাহনী আজ খেলবে ৪-২-৩-১ ফরমেশন। এতে ইনজুরি কাটিয়ে ফেরা ফরোয়ার্ড সাদ উদ্দিন খেলবেন রাইটব্যাকে। ওয়েলিংটন চলে যাবেন মিডফিল্ডে। স্টপার ব্যাক পজিশনে মাসি সাইঘানির সঙ্গী হবেন রায়হান। এমন তথ্যই দিলেন লেমস। তবে জিততে সবার আগে তিনি গোল চান ফরোয়ার্ডদের কাছে। সে সাথে রক্ষনভাগে সঠিক দায়িত্ব।

পিএনএস/আনোয়ার

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech