রকিবুল ভাই কাউকে সম্মান দিতে জানেন না: খালেদ মাহমুদ

  

পিএনএস ডেস্ক : এইতো সেদিন সাবেক ক্রিকেটারদের এক প্রীতি ক্রিকেট আসরে অপ্রীতিকর ও অনাকাঙ্খিত, অনভিপ্রেত ঘটনায় জড়িয়ে পড়েন জাতীয় দলের দুই সাবেক অধিনায়ক রকিবুল হাসান এবং খালেদ মাহমুদ সুজন।

প্রত্যক্ষদর্শীদের মত, কক্সবাজারে সাবেক ক্রিকেটারদের টুর্নামেন্ট লিজেন্ড ক্রিকেট কার্নিভাল চলাকালে প্রকাশ্যে এবং মিডিয়ার উপস্থিতিতে অনুজপ্রতিম খালেদ মাহমুদ সুজন সম্পর্কে নেতিবাচক মন্তব্য করেছিলেন জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক রকিবুল হাসান।

তার প্রতিবাদে সুজন আরও কয়েকধাপ এগিয়ে যান। অগ্রজপ্রতিম রকিবুল হাসানকে তেড়ে গিয়ে লাঞ্ছিত করার চেষ্টা করেন খালেদ মাহমুদ সুজন।

আগের দিন সে ব্যাপারে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত জানাতে গিয়ে রকিবুল হাসান বলেন, ‘আমি সুজনের উগ্র, রুদ্রমূর্তি, উত্তেজক কথাবার্তা আর আচরণ দেখে হতভম্ব হয়ে যাই। হতবাক হয়ে সব দেখেছি। কোন প্রতিক্রিয়া দেখাইনি।’

সেই ঘটনার পর অবশ্য খালেদ মাহমুদ সুজনও মুখ খোলেননি। তবে আজ সোমবার বিকেলে ভারতের রায়পুর থেকে মুঠোফোনে নিজের অবস্থান ব্যাখ্যা করেছেন সুজন।

জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক ও বর্তমান বোর্ড পরিচালকের প্রথম কথা, ‘কেউ যদি কক্সবাজারে আমার রিঅ্যাকশন দেখে বিষয়টা সম্পর্কে একপেশে চিন্তা করেন, তাহলে ভুল হবে। মনে রাখতে হবে, আমি যেচে অকারণে, অহেতুক আবেগতাড়িত এবং উত্তেজিত হইনি। রকিবুল ভাই আমার অনেক বড় , শ্রদ্ধার ও সম্মানের। ভাবতে হবে নিশ্চয়ই তিনি এমন কিছু বলেছেন, যা আমার জন্য মানহানিকর, গ্লানির এবং অসম্মানের।’

এরপর সুজন বলেন, ‘তিনি কোন নেতিবাচক ও অসম্মানজনক কথা না বললে নিশ্চয়ই আমি ওভাবে রিঅ্যাকশন দেখাতাম না। তারপরও আমি স্যরি, দুঃখিত। তার কাছে ক্ষমা চাইতেও দ্বিধা নেই আমার। কিন্তু আমার প্রশ্ন হলো, কেন আমি ওই আউটবাস্ট করেছি? আমি কি কারণে এমন উত্তেজক আচরণ করেছি? সেটাও খুঁটিয়ে দেখা দরকার।’

সুজনের দাবি, ‘রকিবুল হাসান যে ম্যাচ নিয়ে তার টাকা খাওয়ার (ফিক্সিং) কথা বলেছেন, সেটা ছিল পাকিস্তানের বিপক্ষে ৯৯’র বিশ্বকাপে আমাদের শেষ ম্যাচ। যে ম্যাচে আমরা ওয়াসিম আকরামের নেতৃত্বে, পাকিস্তানের শক্তিশালী দলকে হারিয়েছিলাম। অথচ রকিবুল ভাইয়ের দাবি আমরা নাকি ওই ম্যাচে টাকা খেয়েছি? প্রথম কথা তার এমন মন্তব্য শুধু ব্যক্তি বা ক্রিকেটার খালেদ মাহমুদ সুজনের গায়ে কালো দাগ এঁটে দেয়া নয়, পুরো জাতীয় দলের এক অবিস্মরণীয় সাফল্যেও প্রশ্নবোধক চিহ্ন এঁকে দেয়া। আমার প্রশ্ন হলো, রকিবুল ভাই একজন অনেক সিনিয়র মানুষ, জাতীয় দলের সাবেক ক্যাপ্টেন এবং দেশের ক্রিকেটে একজন রেসপেক্টেড পারসন হয়ে এমন কথা বলেন কি করে?’

পরক্ষণে তিনি বলেন, ‘আর এটা তো অবান্তর ও ভিত্তিহীন অভিযোগ, কোন দল ম্যাচ গড়াপেটা করে টাকা খেয়ে আবার জেতে নাকি? টাকা খেয়ে হারের কথা শোনা যায়, কোন ক্রিকেটার বা দল টাকা খেয়ে জেতে এমন কথা শুনিনি কখনো। অমন নজিরও হয়ত নেই। এছাড়া উনি আমাকে খারাপ ছেলে বলেও মন্তব্য করেছেন। যা উনার অবস্থান থেকে শোভা পায় না।’

সুজনের শেষ কথা, ‘রকিবুল ভাই শিক্ষিত। তিনি অনেক বিষয়ে জানেন-বোঝেন। সর্বোপরি তার ক্রিকেট জ্ঞানও প্রখর, প্রবল; কিন্তু তিনি যে অভিযোগ করেছেন এবং আমারও টিম বাংলাদেশকে নিয়ে মন্তব্য করেছেন, তার ভিতরে কি সেই জানা-শোনা, শিক্ষা-দীক্ষা ও ক্রিকেট বোধ বুদ্ধির পরিচয় মিলেছে? আমি বলতে বাধ্য হচ্ছি রকিবুল ভাই কাউকে সম্মান দিতে জানেন না। কেউ ভাল জানতে পারে, বুঝতে পারে- এটা কখনোই তিনি মনে করেন না।’

পিএনএস-জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন