চাপের মুখে দুভাগ হচ্ছে স্যামসাং

  

পিএনএস: নোট সেভেনের ভরাডুবির পর বিনিয়োগকারীদের চাপের মুখে পড়ে স্যামসাং ইলেকট্রনিক্স কোম্পানির কার্যক্রমকে দুভাগে ভাগ করার পরিকল্পনা করছে।

শেয়ারহোল্ডারদের মর্যাদা বাড়াতে কোম্পানিকে ভেঙে নিয়ন্ত্রণকারী শাখা ও পরিচালনাকারী কোম্পানি গঠনের জন্য বেশ কিছু দিন ধরে চাপ ছিল বলে বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

দক্ষিণ কোরিয়ার এই শীর্ষ প্রযুক্তিপণ্যনির্মাতা কোম্পানি শেয়ারহোল্ডারদের লভ্যাংশ বাড়ানোর ঘোষণা দিয়ে বলেছে, কোম্পানির নিয়ন্ত্রণ বাড়াতে খোলা বাজার থেকে শেয়ার পুনঃক্রয় চলতে থাকবে।

বিবিসি বলছে, বাজারে স্যামসাংয়ের ‘নোট-৭’ ভরাডুবির পর থেকেই কোম্পানি পুনর্গঠনে চাপ বাড়ছিল।

গত অক্টোবরে স্মার্টফোনের শীর্ষ এই মডেল বাজারে আসার পর এর ব্যাটারিতে সমস্যার কথা জানিয়ে পণ্যটি বাজার থেকে তুলে নিয়ে উৎপাদন বন্ধ করে দেয় স্যামসাং।

নোট-৭ এর ব্যাটারি চার্জ শুরুর অল্প সময়ের মধ্যেই গরম হয়ে যেত; কিছু ক্ষেত্রে ব্যাটারি বিস্ফোরিত হয়ে আগুন ধরার ঘটনাও ঘটেছিল বলে ভোক্তারা অভিযোগ করেছেন।

মঙ্গলবার স্যামসাং এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, পুনর্গঠনের ক্ষেত্রে সর্বোত্তম করপোরেট কাঠামো পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে পর্যালোচনা করতে বাইরের পরামর্শক নিয়োগের সিদ্ধান্ত নিয়েছে কোম্পানটি ।

তবে এর মধ্য দিয়ে কোম্পানিকে ‘এদিক সেদিক নেওয়ার কোনো পরিকল্পনা’ ব্যবস্থাপনা পর্ষদ বা বোর্ডের নেই বলে আশ্বস্ত করা হয়েছে।

পরিচালন পদ্ধতির উন্নতি ঘটাতে ‘একজন নতুন, আন্তর্জাতিক ও স্বতন্ত্র বোর্ড সদস্য’ নিয়োগের পাশাপাশি পরিচালনা পর্ষদে আরও নতুন পদ সৃষ্টির কথা জানিয়েছে কোম্পানিটি।

বিবৃতিতে চলতি অর্থবছরে কোম্পানির মোট লাভের অর্ধেক শেয়ারহোল্ডারদের নগদ অর্থে পরিশোধ করার কথা জানিয়েছে স্যামসাং।

একইসঙ্গে ২০১৬ সালে আগের বছরের তুলনায় ৩৬ শতাংশ বেশি লভ্যাংশ দেওয়ার ঘোষণাও দেওয়া হয়েছে।

স্যামসাংকে দুভাগ করতে যুক্তরাষ্ট্রের হেজ ফান্ড এলিয়ট ম্যানেজমেন্ট প্রস্তাবের এই বিবৃতি এলো।

এই পরামর্শ কোম্পানির ভাষ্য, বিভাজনের পর স্যামসাংয়ের প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামো সহজ হবে; মোট সম্পদের পরিমাণ বিনিয়োগকারীদের কাছে ‘স্পষ্ট’ হবে।

বিবিসি বলছে, স্যামসাং গ্রুপের চলমান মালিকানাপদ্ধতি বেশ জটিল, যাতে নিজস্ব ফার্মের পাশাপাশি জাহাজ শিল্প, ভারী শিল্প ও বীমা ব্যবসার সঙ্গে জড়িত সহযোগীরাও যুক্ত। এর ফলে স্যামসাংয়ের মোট সম্পদের পরিমাণ নিয়ে বিনিয়োগকারীরা সঠিক ধারণা পায় না।

এলিয়ট ম্যানেজমেন্ট বলছে, স্যামসাং ইলেকট্রনিক্স ভাগ হলে ‘হোল্ডিং কোম্পানি’ জটিল মালিকানার বিষয়টি দেখভাল করবে। বিপরীতে অপারেটিং কোম্পানি আলাদা হওয়ায় তার মূল্যায়ন সহজ হবে।

স্যামসাংয়ের একাধিক বিনিয়োগকারীর মন জয় করেছে হেজ ফান্ডটির এই প্রস্তাব, যা কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতা লি পরিবারের প্রভাব বাড়াবে বলে বিবিসির ধারণা।



পিএনএস/বাকিবিল্লাহ্

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech