মেসেজটি না পাঠালে ফেসবুক ব্যবহারে পয়সা গুনতে হবে?

  


পিএনএস ডেস্ক: একটি যন্ত্রণাদায়ক স্ক্যাম ছড়িয়ে পড়েছে ফেসবুক মেসেঞ্জার ও হোয়াটসঅ্যাপে। এই স্ক্যাম ব্যবহারকারীদের কৌশলে একটি মেসেজ পাঠাতে বাধ্য করছে।

বিষয়টি গুজব আকারেই ছড়িয়ে রয়েছে। বলা হচ্ছে, ব্যবহারকারীদের একটি বিশেষ মেসেজ পাঠাতে বাধ্য করা হচ্ছে। যদি না করেন তো পরবর্তিতে বন্ধু-স্বজনদের কাছে পাঠানো মেসেজের জন্য পয়সা দিতে হবে বলেও জানানো হয়। ফেসবুক থেকে পাওয়া একটি পোস্টে বলা হয়, কোনো ব্যবহারকারী যদি অ্যাপ থেকে পোস্টটি কপি এবং পেস্ট না করেন, তবে তাদের 'ক্রিয়াশীল ব্যবহারকারী' হিসাবে গণ্য করা হবে না। আর তখন থেকে মেসেজ পাঠানোর জন্য তাদের কাছ থেকে পয়সা কাটা হবে।

কিন্তু ফেসবুক বা হোয়াটসঅ্যাপ মেসেজ পাঠানোর জন্য কোনো ব্যবহারকারীর কাছ থেকে পয়সা নেওয়ার কথা নয়। উভয়ে ক্ষেত্রে সেবাটি বিনামূল্যে মিলবে। ফেসবুকের বিজনেস মডেলটি হলো, ব্যবহারকারীদের তথ্য সংগ্রহ করে তা বিজ্ঞাপন প্রদানকারী সংস্থার কাছে দিয়ে দেয়। তারা এর মাধ্যমেই মার্কেটিং করে।

এই মেসেজটি সেই সকল ব্যবহারকারীরাই শেয়ার করছেন যারা বিষয়টি বিশ্বাস করছেন। মেসেজেটি প্রত্যেক ব্যবহারকারীকে স্পষ্টভাবে শেয়ার করতে বলা হচ্ছে।

মেসেজে বলা হয়, শনিবার সকাল থেকে ফেসবুকে কাজ করতে গেলে পয়সা দিতে হবে, যদি আপনি অন্তত ১০ জনকে এই মেসেজটি না পাঠান। এই উপায়েই আমরা বুঝবো আপনারা ক্রিয়াশীল ব্যবহারকারী কিনা। যদি তাই হন তো আপনার লোগোটি নীল রংয়ের হয়ে যাবে এবং আপনি আগের মতোই বিনামূল্য কাজ করতে পারবেন।

একই ভাষ্যের মেসেজ হোয়াটসঅ্যাপেও পাঠানো হয়েছে। তবে অনেকে মনে করছেন, এটা একটা বানোয়াট জিনিস। এর মাধ্যমে গুজব রটানো হচ্ছে। এর মাধ্যমে আসলে ফেসবুক বা হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারকারীদের কোনো হুমকি দেওয়া হয়নি। কিংবা তাদের কাছ থেকে অর্থও হাতিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে না। কিন্তু এতে যারা সাড়া দেবেন, তাদের কেবল কিছু সময়ের অপচয় ঘটবে। সূত্র : ইনডিপেনডেন্ট

পিএনএস/আনোয়ার

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech