ইশারায় লক-আনলক

  

পিএনএস ডেস্ক: বাজারে আসার আগেই বেশ সাড়া ফেলেছে অ্যাপলের হ্যান্ডসেট আইফোন টেন। প্রি-বুকিং শুরুর পর কম সময়ের মধ্যে সর্বোচ্চ অর্ডার পাওয়া ফোনের তালিকায় এই হ্যান্ডসেট।

তবে, বিপুল এ চাহিদা অ্যাপেল পূরণ করতে পারবে কিনা তা নিয়ে চলছে জল্পনা-কল্পনা।

আইফোনের ১০ বছর পূর্তি উপলক্ষে নভেম্বরে বাজারে আসছে অ্যাপলের হ্যান্ডসেট আইফোন টেন। হ্যান্ডসেটের ৫ কোটি প্রি-বুকিং লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হলেও মাসের ব্যবধানে তা কমিয়ে আনা হয় সাড়ে ৩ কোটিতে।

ইশারায় লক-আনলক, তারবিহীন চার্জারসহ নানা চমক থাকায় প্রি-বুকিংয়ে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে আইফোন টেন। বিজনেস ইনসাইডারের প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, নতুন বছর শুরুর আগে সর্বোচ্চ সাড়ে ৩ কোটি আইফোন টেন হ্যান্ডসেট সরবরাহ করতে পারবে অ্যাপল।

প্রি-বুকিংয়ে এখন পর্যন্ত যে অর্ডার পাওয়া গেছে, সেগুলো সরবরাহে হিমশিম খেতে হবে মার্কিন এ টেক জায়ান্টকে। ধারণা করা হচ্ছে, আগামী বছরের প্রথম প্রান্তিকেও প্রি-বুকিংয়ের হ্যান্ডসেট হন্তান্তর প্রক্রিয়া শেষ করতে পারবে না তারা।

আইফোন এইট এবং এইট প্লাস বিক্রি হচ্ছে ৬৯৯ ডলার এবং ৭৯৯ ডলারে। আর আইফোন টেনের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ৯৯৯ ডলার। দামের পার্থক্য খুব বেশি নয়; তাই আইফোন টেনের দিকেই ছুটছে সবাই।

প্রি-বুকিংয়ে বিক্রি হওয়া আইফোন এইট এবং আইফোন এইট প্লাস হ্যান্ডসেট সরবরাহ নিয়ে সমালোচনার মুখে পড়েছে অ্যাপেল। নতুন হ্যান্ডসেট দুইটির ব্যাটারি সমস্যা তৈরী করছে। স্যামসাং গ্যালাক্সি সেভেনের মতো বৈদ্যুতিক বিস্ফোরণের আশঙ্কাও করছেন কেউ কেউ।

চার্জ দেওয়ার সময় হ্যান্ডসেটের নিরাপত্তার বিষয়ে বেশ সতর্ক অ্যাপল। নিরাপত্তার বিষয়টি মাথায় রেখেই ইউএসবি চার্জারের সাথে অ্যাডাপটার সংযুক্ত করা হয়েছে।

নতুন হ্যান্ডসেটের ব্যাটারি নিয়ে সমালোচনা হলেও আইফোন টেনের প্রি-বুকিং কি পরিস্থিতি হতে পারে তা নিয়ে সংশয় কাটছে না।

পিএনএস/হাফিজুল ইসলাম

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech