মঙ্গল গ্রহে পানি ছিল, দাবি গবেষকদের

  

পিএনএস ডেস্ক: মঙ্গল গ্রহ নিয়ে মানুষের কৌতুহলের অন্ত নেই। অনেকেই আবার সুযোগ পেলে মঙ্গলে জমিও কিনে রাখতে চান, ভবিষ্যতে যদি বসতবাড়ি তৈরি করা যায়। তবে এ মঙ্গল গ্রহ একসময় নাকি পৃথিবীর মতোই ছিল। আকৃতিতে তুলনামূলক ছোটো, সিক্ত, নীলাভ। প্রায় ৪ বিলিয়ন বছর আগে এই রকমই রূপ ছিল। এমনই মনে করছেন বিজ্ঞানীরা।

শুধু তাই নয়, জানলে আপনি অবাক হবেন যে, এ লাল গ্রহে ৪.৪ বিলিয়ন বছর আগে পানির অস্তিত্বও ছিল। আর যা নিয়ে আজও গবেষকদের মধ্যে চলছে চুলচেরা বিশ্লেষণ। পৃথিবীর তাবড় তাবড় মহাকাশ বিজ্ঞানীরা মঙ্গলকে নিয়ে যতই কাটাছেঁড়া করতে শুরু করেছে ততই উঠে এসেছে নানান প্রশ্ন। অজানা কৌতূহল।

মঙ্গলে পানির অস্তিত্ব ছিল এ নিয়ে বিজ্ঞানীরা নিশ্চিত। কিন্তু কতটা পানি ছিল মঙ্গলে? এ বিষয়ে একটি প্রাচীন মার্টিয়ান উল্কাকে নিয়ে বিশ্লেষণ করার পরে জাপানের একদল গবেষক জানিয়েছেন যে, মঙ্গল গ্রহে আজ থেকে প্রায় ৪.৪ বিলিয়ন বছর আগে পানির সন্ধান মিলেছিল।

তবে মঙ্গলে এই পানি ঠিক কোথা থেকে এসেছিল তা নিয়ে বিশদে বলতে গিয়ে জাপানি অধ্যাপক মিকোচি জানিয়েছেন যে, আজ থেকে ৪.৪ বিলিয়ন বছর আগে সাহারা মরুভূমিতে একজোড়া উল্কা আবিষ্কার করা হয়েছিল। তাদের এনডব্লুএ ৭০৪০ এবং এনডব্লিউএ৭৫৩৩ নামে অভিহিত করা হয়েছিল।

বিজ্ঞানীদের ধারণা, বহু বছর আগে এই উল্কাপাতের সঙ্গে সঙ্গে ম্যাগমা এবং মহাজাগতিক নানা বস্তুর সংঘর্ষে কঠিন শিলাখন্ড গুলি চাপ ও তাপের প্রভাবে গলে গিয়ে পানির সৃষ্টি করেছিল।

যদিও পৃথিবীর আগে মঙ্গলে কীভাবে পানির অস্তিত্ব পাওয়া গেলো সেই বিষয়ে অবশ্য কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি জাপানি গবেষক দল।

‘আমাদের বিশ্লেষণে আরো বোঝা যায় যে, এ জাতীয় উল্কাপাতের ফলে প্রচুর হাইড্রোজেন গ্যাস উৎপাদিত হতো। যা মঙ্গল গ্রহে কার্বন-ডাই অক্সাইডের ঘন অন্তরক ছিল যা সেই সময় মঙ্গল গ্রহের উষ্ণায়নে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রেখেছিল।’

যদিও প্রাকৃতিক উপায়েও মঙ্গলে পানির সৃষ্টি হতে পারে বলে জানিয়েছেন গবেষকরা। তবে মঙ্গলে কীভাবে পানি এলো এবং বছরের পর বছর কীভাবে এর আবহাওয়া ও মৃত্তিকার পরিবর্তন ঘটে চলেছে তা নিয়েও বিস্তর মতানৈক্য রয়েছে বিভিন্ন বিজ্ঞানীদের মধ্যে।

পিএনএস/এএ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন