ডিমলায় তাপমাত্রা ৫.৫ ডিগ্রি

  

পিএনএস: তিস্তা নদী বিধৌত নীলফামারীর ডিমলাসহ ও পাশ্ববর্তী এলাকায় কনকনে হাড় কাঁপানো শীত আর ঘন কুয়াশায় কাবু হয়ে পড়েছে মানুষজন।

শনিবার উত্তরের জেলা নীলফামারীর ডিমলায় তাপমাত্রা ৫.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে এসেছে। এতে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে।

বিশেষ করে কনকনে শীতে দরিদ্র-অসহায় মানুষের দুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করেছে। শিশু ও বৃদ্ধসহ অনেক মানুষ শীতজনিত নানা রোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। ফলে হাসপাতালে শীতজনিত রোগীর ভিড়ও বাড়ছে।

সরকারিভাবে ইতিমধ্যে জেলায় পাঁচ হাজার কম্বল বিতরণ করা হয়েছে। শীতবস্ত্র কম পাওয়ায় বিপাকে পড়েছেন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরা।

এদিকে গত কয়েক দিনের শীতের প্রকটের কারণে পুরোনো কাপড়ের দোকানে দরিদ্র মানুষের পড়া ভিড় লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

এছাড়া সাধারণত হাট-বাজারে লোকের উপস্থিতি কমে গেছে। হেড লাইট জ্বালিয়ে যানবাহন চলাচল করছে।

তিস্তাপাড়ের হতদরিদ্র মানুষের জন্য প্রয়োজনের তুলনায় কম কম্বল পেয়েছেন বলে জানিয়েছেন ঝুনাগাছ চাপানি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আমিনুর রহমান।

তিনি বলেন, সরকারিভাবে ২০০টি কম্বল পাওয়া গেলেও চাহিদা রয়েছে দুই হাজারের মতো। এ কারণে বাধ্য হয়ে রাতের আঁধারে হতদরিদ্রদের কম্বল বিতরণ করতে হচ্ছে।

পূর্ব ছাতনাই ইউপি চেয়ারম্যান প্রভাষক আবদুল লতিফ খান বলেন, শীতবস্ত্রের চরম সংকট দেখা দিয়েছে। সরকারিভাবে যে কম্বল পাওয়া যাচ্ছে তা প্রয়োজনের তুলনায় নগণ্য।

ডিমলা আবহাওয়া অফিসের পর্যবেক্ষক কর্মকর্তা জামাল উদ্দিন যুগান্তরকে বলেন, শনিবার সকাল ৬টায় ডিমলায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৫.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

সেই সঙ্গে উত্তরী হিমবাতাসের মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। দুপুরের পর সূর্যের কিছুটা মুখ দেখা গেছে। তবে তাতে শীতের তীব্রতা কমেনি।

পিএনএস/বাকিবিল্লাহ্

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech