রাজাকার আব্দুল মোমিন তালুকদার খোকার বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা

  

পিএনএস, আদমদীঘি প্রতিনিধি : বগুড়ার সান্তাহার শহরের বাসিন্দা আদমদীঘি উপজেলা রাজাকার কমান্ডার আব্দুল মোমিন তালুকদার খোকার বিরুদ্ধে বৃহস্পতিবার গ্রেফতারী পরোয়ানা জারী করেছে মানবতাবিরোধী ও আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনাল আদালতের সদস্য বিচারপতি মোহাম্মদ শাহিনুর ইসলাম ও সদস্য বিচাপতি মোঃ সোহরাওয়ার্দি।

আদালতের প্রসিকিউটর (অতিরিক্ত আর্টনী জেনারেল) এ্যাড. সুলতান মাহমুদ সীমনের আবেদনের প্রেক্ষিতে বিজ্ঞ আদালত এ গ্রেফতারী পরোয়ানার আদেশ প্রদান করেন। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ট্রাইব্যুনালের তদন্ত দলের সদস্য সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার জেএম আলতাফুর রহমান ও প্রসিকিউটর এ্যাড. সুলতান মাহমুদ সীমন খোকা রাজাকারের বিরুদ্ধে আদালত কর্তৃক গ্রেফতারী পরোয়ানা জারী করার কথা মোবাইল ফোনে নিশ্চিত করেছেন।

১৯৭১সালে মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে আদমদীঘি থানা শান্তি কমিটির (পিস কমিটি) প্রধান মুসলিমলীগ নেতা আব্দুল মজিদ তালুকদার তার ছেলে আব্দুল মোমিন তালুকদার খোকাকে ১নং করে রাজাকার রিক্রুটিং শুরু করেছিলেন। এর পর মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে খোকা ও তার পিতা আব্দুল মজিদ তালুকদার আদমদীঘি থানা এলাকার সুদিন রেল ব্রীজে ৯ নিরপরাধ ও নিরস্ত্র বাঙালি, সান্তাহার রথবাড়ীর জমিদার সুরেন্দ্র নাথের বাড়ীতে সাবেক জমিদার সুরেন্দ্র নাথ ও তাঁর স্ত্রী হরিভবানী দাসী সহ ১৬ বাঙালি এবং আদমদীঘি খাড়ির ব্রিজ সংলগ্ন শ্মশানঘাটিতে ৪ মুক্তিযোদ্ধাকে পাকি হানাদার বাহিনীর সহায়তায় প্রকাশ্য দিনের বেলায় গুলি করে হত্যা করে।

খোকার বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলায় আনীত অভিযোগগুলো ৩৬ স্বাক্ষীর স্বাক্ষ্য গ্রহণের মাধ্যমে তদন্ত শেষে সন্দেহাতীতভাবে প্রমানিত হওয়ায় তার বিরুদ্ধে এ গ্রেপ্তারী পরোয়ানা জারী করা হয়েছে। এদিকে ২০১১ সালে আদমদীঘি উপজেলার কায়েতপাড়া গ্রামের বাসিন্দা মুক্তিযোদ্ধা সুবিদ আলী; ৪ মুক্তিযোদ্ধা হত্যার অভিযোগ এনে বগুড়ার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে খোকার বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী ও যুদ্ধাপরাধের অভিযোগ এনে একটি মামলা দায়ের করে। বিজ্ঞ আদালত সুবিদ আলীর আবেদনটি এজাহার হিসাবে লিপিবদ্ধ করার জন্য আদমদীঘি থানার অফিসার ইনচার্জকে নির্দেশ দেয়। এর প্রেক্ষিতে অফিসার ইনচার্জ তা এজাহারভুক্ত করে অধিকতর তদন্ত সহ আইনী ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য মামলাটি মানবতা বিরোধী আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে পাঠায়।

এছাড়াও ১৯৭১ সালের ১৩ নভেম্বর আদমদীঘির চকসোনার গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা আলতাফ হোসেন মন্ডল এবং কোমারপুর গ্রামের আব্দুল জলিল আকন্দকে গুলি করে হত্যার অভিযোগে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা আলতাফের ভাই আব্দুল জব্বার বাদী হয়ে ১৯৭২ সালের ১ জুন আদমদীঘি থানায় মামলা করেন। এসব মামলার সুত্র ধরে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্ত কর্মকর্তা ৪ দফা তদন্ত শেষে বৃহস্পতিবার খোকা তালুকদারেরর বিরুদ্ধে আদালতে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারীর আবেদন করেন। এর প্রেক্ষিত তে আদালত খোকার বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারী করেন।

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল


 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech