গণধর্ষণের শিকার শিক্ষিকা

  

পিএনএস, নোয়াখালী: নোয়াখালীতে এক মহিলা মাদরাসার শিক্ষিকা গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন। এ ছাড়া সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার পল্লীতে ধর্ষণের শিকার হয়েছেন অষ্টম শ্রেণীর এক স্কুলছাত্রী।

নোয়াখালী সংবাদদাতা জানান, নোয়াখালীতে এক মহিলা মাদরাসার শিক্ষিকা কুরআনে হাফেজা (১৫) গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন। গত মঙ্গলবার রাত ১০টায় এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে জেলার বেগমগঞ্জের জিরতলী ইউপির খাতেনু জান্নাত মহিলা হাফেজিয়া মাদরাসার শিক্ষিকা কুরআনে হাফেজা (১৫) তার মায়ের অসুস্থতার খবর পেয়ে মাদরাসা থেকে বাড়ি যাওয়ার জন্য দ্রুত রাস্তায় বের হন। তিনি রাস্তায় যানবাহনের অপেক্ষা করার সময় জমাদারবাড়ির সামনে রাস্তা থেকে তাকে তুলে নেয় মধ্যম জিরতলী গ্রামের কোয়ারবাড়ির ইউছুপের ছেলে মোরশেদ (২৩) একই গ্রামের বেপারিবাড়ির তরিক উল্লার ছেলে বাবুল (২৫) এবং একই গ্রামের জমাদারবাড়ির সালাউদ্দিন (৩০)।

পরে তাকে জোর করে পাশের নির্জন স্থানে নিয়ে গণধর্ষণ করে তারা। ঘটনার প্রায় এক ঘণ্টা পর এলাকাবাসী টের পেয়ে মেয়েটিকে উদ্ধার করে জিরতলী বাজারে নিয়ে যান। পরে এলাকাবাসী তাকে বাড়ির ঠিকানায় পাঠানোর ব্যবস্থা করেন। বাজারের লোকজন জানান, এ ঘটনায় থানায় মামলা করতে গেলে পুলিশ মামলা নেয়নি। পরে মাদরাসার পক্ষ থেকে এ ব্যাপারে একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়। (ডায়েরি নং-২৩৬৭)।

ধর্ষিতা শিক্ষিকার বাড়ি বেগমগঞ্জের দুর্গাপুর গ্রামে এবং তার বাবা মসজিদের একজন ইমাম। এ দিকে এ ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার জন্য একটি প্রভাবশালী মহল উঠেপড়ে লেগেছে। নোয়াখালীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এ এ কে এম জহিরুল ইসলাম জানান, ঘটনায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে এবং মেয়েটির নিরাপত্তার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ দিকে ওই ইউপির চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম মিলনকে এ ব্যাপারে জানতে একাধিক বার ফোন করেও পাওয়া যায়নি।

পিএনএস/আনোয়ার

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech