বিজিবির ওপর বিএসএফের হামলা, আহত ৩

  

পিএনএস ডেস্ক: কুমিল্লায় সীমান্ত রেখা অতিক্রম করে বাংলাদেশে প্রবেশ করে বিএসএফ সদস্যরা বিজিবি সদস্যের ওপর হামলা ও ফাঁকা গুলি চালিয়েছে। হামলায় তিন বিজিবি সদস্য আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে।

সোমবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে কুমিল্লার আদর্শ সদর উপজেলার পাঁচথুবী ইউনিয়নের কেরানীনগর মধ্যমপাড়া বিজিবির গোলাবাড়ি সীমান্ত ফাঁড়ির আওতাধীন এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনার পর বিকেল ৫টার দিকে উভয় দেশের বিজিবি ও বিএসএফ অধিনায়ক পর্যায়ে পতাকা বৈঠক শুরু হয়ে রাত সাড়ে ৭টার দিকে শেষ হয়। ঘটনার পর থেকে সীমান্তবর্তী ওই এলাকার জনগণের মাঝে আতঙ্ক ও উত্তেজনা বিরাজ করছে।

এ ঘটনায় কুমিল্লা সীমান্তে বিজিবির অতিরিক্ত ফোর্স মোতায়েন রাখা হয়েছে। রাতে শেষ হওয়া ওই পতাকা বৈঠকে ঘটনার জন্য বিএসএফ দঃখ প্রকাশ করেছে বলে কুমিল্লাস্থ ১০ বিজিবির অধিনায়ক খন্দকার লে. কর্নেল গোলাম সারোয়ার সাংবাদিকদের জানিয়েছেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সোমবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে সীমান্তের কেরানীনগর মধ্যমপাড়া এলাকায় দুই নারীকে চোরাকারবারী সন্দেহে ধাওয়া করে বিএসএফের এক সদস্য নো-ম্যানস ল্যান্ড অতিক্রম করে বাংলাদেশের প্রায় ৩শ’ গজ ভেতরে ঢুকে ওই নারীদের আটকের চেষ্টা করে। এসময় বিজিবির গোয়েন্দা বিভাগের ফিরোজ নামের এক সদস্য বিএসএফ সদস্যকে বাংলাদেশ অভ্যন্তরে প্রবেশ ও তাদের আটকের কারণ জিজ্ঞাসা করেন। এসময় বিএসএফ সদস্য ও ভারতের ৮/১০ জন স্থানীয় লোক বিজিবির গোয়েন্দা সদস্য ফিরোজকে তুলে নেয়ার চেষ্টা করে। এতে বাংলাদেশের স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে এবং বিএসএফ সদস্যকে ধরে স্থানীয় গোলাবাড়ি বিজিবি ক্যাম্পের দিকে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেন বাহালুল, স্থানীয় বাসিন্দা রিপন, বাপ্পী, কলেজছাত্র মাজহারুল ইসলাম ও মাহমুদসহ স্থানীয়রা সাংবাদিকদের জানান, এ ঘটনার এক পর্যায়ে ভারতের ৪০/৫০ জন লোক ও বিএসএফের ২৫/৩০ জনের সশস্ত্র সদস্য বাংলাদেশ অভ্যন্তরে ঢুকে পড়ে। এ সময় টহলরত দুই বিজিবি সদস্য ও গোয়েন্দা সদস্য ফিরোজকে বেধড়ক মারধর করে।

এক পর্যায়ে এলাকায় আতঙ্ক সৃষ্টির জন্য বিএসএফ ফাঁকা গুলি চালায়। স্থানীয় বাংলাদেশি লোকজন ঘটনাস্থলের দিকে এগিয়ে গেলে বিএসএফ ও ভারতীয় লোকজন পালিয়ে যায়। এসময় বিজিবির একটি দল ঘটনাস্থলে গিয়ে আহত বিজিবির তিন সদস্যকে উদ্ধার করে বলে স্থানীয়রা সাংবাদিকদের জানিয়েছেন।

এদিকে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যান কুমিল্লা ১০ বিজিবির কর্মকর্তারা। বৈঠক শেষে রাত সাড়ে ৭টার দিকে ১০ বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল খন্দকার গোলাম সারোয়ার সাংবাদিকদের জানান, ‘এ ঘটনাটি অনাকাঙ্ক্ষিত, অধিনায়ক পর্যায়ের পতাকা বৈঠকে বিষয়টির সুরাহা করা হয়েছে, বৈঠকে বিএসএফ প্রতিনিধিরা ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছেন।’

পিএনএস/হাফিজুল ইসলাম

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech