শিশু সন্তানকে বাঁচাতে অসহায় পিতার আঁকুতি

  

পিএনএস, নীলফামারী জেলা প্রতিনিধি : অন্যান্য শিশুদের মতই ছোটাছুটি, খেলাধুলা সবই করছেন পাঁচ বছর বয়সের ফুটফুটে কোমলমতি অবুঝ শিশু বাঁধন ইসলাম। নিজের মনে ছুটে বেড়াচ্ছেন, বাবা-মায়ের কোলে আদরে সোহাগে বেড়েও ওঠছেন। তাকে নিয়ে বাবা-মায়ের স্বপ্ন একটাই সন্তান বড় হবে সমাজে মানষের মত মানুষ হয়ে তাদের মুখ উজ্ঝল করবে। কিন্ত বাঁধনের বাবা-মায়ের সেই স্বপ্নে বড় বাধা হয়ে দাড়িয়েছে সন্তানের অসুস্থ্যতা। অবুঝ শিশু জানেনা যে তার কিডনীতে সমস্যা। জন্মের এক বছর পর থেকে কিডনী সংক্রান্ত সমস্যায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে সে।

এখন আর দশটা বাবা-মায়ের ভাবনা থেকে আলাদা ভাবনা মনে গেঁথে বসে বাঁধনের বাবা-মায়ের মনে। যতই দিন যাচ্ছে ততই যেন মৃত্যু তার ঘনিয়ে আসছে। আর কোন বাবা-মায়ের পক্ষে এমনটা মেনে নেয়া খুবই কষ্টকর। শুধুই একটাই চিন্তা বাঁধনের চিকিৎনা করিয়ে তাকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনা। পারবে কি তারা সন্তানকে নতুন জীবনে ফিরিয়ে নুতন কোন স্বপ্ন নিয়ে বাঁধনকে মানুষের মত মানুষ করে গড়ে তুললে?

নীলফামারী জেলার ডিমলা উপজেলার সদর ইউনিয়নের বাবুরহাট গ্রামের আরিফুল ইসলাম লিঠু ও পারভীন আক্তারের ছোট ছেলে বাঁধন। তিন ভাই বোনের মধ্যে সে ছোট। আরিফুল ইসলাম ছোট্ট একটি ডেকোরেটরে বাবুর্চীর কাজ করে সংসার চালান।

এ ব্যাপারে বাঁঁধনের বাবা লিঠুর সাথে কথা হলে তিনি জানান, জন্মের এক বছর পর থেকেই তার সন্তানের কিডনীতে সমস্যা দেখা দেয়। প্রায় তিন বছর ধরে সন্তানের চিকিৎসা করে আসছেন। সন্তানের চিকিৎসা করতে গিয়ে চাষের জমি, বসতভিটা বিক্রয় করে ইতিমধ্যে প্রায় ১০ লক্ষ টাকা খরচ করেছেন। ফলে সর্বশান্ত হয়ে পড়েছেন। এখন আর তেমন কিছু নেই যে যা বিক্রি করে চিকিৎসা করবেন। বসতবাড়ীর ৮ শতাংশ জমির মধ্যে ইতিমধ্যে ৪ শতাংশ জমি বিক্রি করে দিয়েছে।

তিনি আরো জানান, উন্নত চিকিৎসার জন্য সন্তানকে নিয়ে ভারতের ভেলর ও কলকাতায় চিকিৎসা করান। চিকিৎসকরা বলছেন তাকে দীর্ঘদিন চিকিৎসা করাতে হবে। সেখানেই থেকে চিকিৎসা করাতে হবে। তাই তার চিকিৎসার জন্য আরও ৪-৫লক্ষ টাকার প্রয়োজন। বর্তমানে শিশুটি ভারতে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

তার কাছে তেমন কোন টাকা নাই সেখানে থেকে চিকিৎসা করাবেন। টাকা না হলে শিশু বাঁধনকে নিয়ে চলে আসতে হবে। তাই একজন অসহায় পিতা হয়ে আমার অবুঝ শিশু সন্তানকে বাঁচাতে সমাজের বিত্তবানদের কাছে সাহায্যের হাত বাড়িয়েছি। আপনারা দয়া করে আমার সন্তানের জন্য সাহায্যেও হাত বাড়িয়ে দিবেন।

ভারতের খিস্ট্রান মেডিকেল কলেজ ভেলর কিডনী রোগের বিভাগীয় প্রধান ডাক্তার ভিসাল গলে জানিয়েছেন, পরীক্ষা নিরীক্ষায় ধরা পড়েছে শিশুটির দুটো কিডনি নস্ট হওয়ার উপক্রম হয়েছে। শিশুটির সুস্থ করতে দীর্ঘদিন চিকিৎসা করতে হবে। আর তা এখানে থেকেই করতে হবে।

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল



 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech