ডিমলার দুই সরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক সংকট

  

পিএনএস, নীলফামারী জেলা প্রতিনিধি : নীলফামারীর ডিমলার দুইটি সরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে দীর্ঘদিন থেকে শিক্ষক সংকটের কারণে কাংখিত ফলাফল অর্জনে ব্যর্থ হচ্ছে শিক্ষার্থীরা। এতে চিন্তিত হয়ে পড়েছে তাদের অবিভাবকরা।

বিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, রানী বৃন্দা রানী সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়টিতে ৬ষ্ঠ শ্রেনী হতে ১০ম শ্রেনী পর্যন্ত শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৩শ ৫০ জন। ১৯৮৬ সালে বিদ্যালয়টিকে জাতীয়করণ করা হয়। বিষয় ভিত্তিক শিক্ষক সংখ্যা মোট ১১ জন হলেও শিক্ষক রয়েছে ৫জন। শিক্ষক সংকটে একদিকে শিক্ষা কার্যক্রম হচ্ছে ব্যাহত।

অন্যদিকে ৫ জন শিক্ষক নিয়ে বিদ্যালয়ের পাঠদান পরিচালনায় খোদ প্রধান শিক্ষক পড়েছেন চরম বিপাকে। শিক্ষক সংকটের কারনে শিক্ষার্থীদের আশানুরুপ শ্রেনী ভিত্তিক পাঠদান না হওয়ায় চিন্তিত হয়ে পড়েছে শিক্ষার্থীদের অবিভাবক। ইংরেজী, গণিত, সমাজ বিজ্ঞান, শারিরীক শিক্ষার মত গুরুত্বপূর্ন বিষয়ের শিক্ষক সংকটের কারনে শিক্ষার্থীরা আশানুরুপ ফলাফলের বিষয়ে হতাশ হয়ে পড়েছে। শুধু তাই নয় ৪র্থ শ্রেনীর কর্মচারী ছয়জন থাকার কথা থাকলেও কর্মরত রয়েছে একজন।

উপজেলা একমাত্র (বালক) ডিমলা রানী বৃন্দা রানী সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ে অত্র এলাকার অবিভাবকগণ তাদের সন্তানের উন্নত শিক্ষার জন্য অত্র বিদ্যালয়ে প্রতিযোগিতার মাধ্যমে ভর্তি করান। কিন্তু শিক্ষক সংকটের কারনে তাদের সে আশা ভেস্তে যেতে বসেছে।

এ বিষয়ে রানী বৃন্দা রানী সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল হানিফ সরকার শিক্ষক সংকটের কথা স্বীকার করে বলেন, শিক্ষক চাহিদার বিষয়ে মাধ্যমিক উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক রংপুর অঞ্চলের বরাবরে আবেদন করা হয়েছে।

অপর দিকে সরকারি বালিকা বিদ্যালয়টিতেও রয়েছে শিক্ষক সংকট। বিদ্যালয়টিতে ছাত্রীর সংখ্যা ৩শ ২জন। ১৯৮৫ সালে বিদ্যালয়টিকে জাতীয়করণ করা হয়। শিক্ষক সংখ্যা ১২ জন। কিন্তু গত ১০ বছর ধরে বিদ্যালয়টিতে শিক্ষক সংকট লেগেই আছে এবং ৫ জন শিক্ষক নিয়ে দীর্ঘদিন যাবত পাঠদান ও বিদ্যালয়টি পরিচালনা হয়ে আসছে। এতে শিক্ষার্থীদের বিষয় ভিত্তিক পাঠদান ও বিদ্যালয়টি পরিচালনা করতে হিমশিম খেতে হচ্ছে কর্তৃপক্ষকে। শুধু তাই নয় ৪র্থ শ্রেনীর কর্মচারী পাঁচজন থাকার কথা থাকলেও কর্মরত রয়েছে একজন।

ডিমলা সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মাহফুজুল হক জানান, একাধিকবার শিক্ষক সংকটের বিষয়টি এবং শিক্ষক চাহিদা পূরনের জন্য মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর রংপুর অঞ্চলের বরাবরে লিখিত আবেদন করা হয়েছে।

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর রংপুর অঞ্চলের উপ-পরিচালক মোস্তাক হাবীব বলেন, ডিমলা রানী বৃন্দা রানী সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় ও ডিমলা সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক সংকটের বিষয়টি আমি জেনেছি। কিন্তু শিক্ষক সংকটের বিষয়টি পুরো বিভাগের। শিক্ষক সংকট বিষয়টি নিরসনের জন্য নতুন নিয়োগ প্রক্রিয়া চলছে। খুব শ্রীগ্রই এ সমস্যা সমাধানের ব্যবস্থা করা হবে।

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech