বরিশালে ইউপি সদস্যের নির্যাতনে বৃদ্ধ খুন

  

পিএনএস, বরিশাল: বাকেরগঞ্জের দুর্গাপাশা ইউনিয়নে মধ্য জিরাইলে ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য লিটন মল্লিকের হাতে শালিসের বিরোধে তোফাজ্জেল হোসেন জিতেন মল্লি (৫৫) নামের এক বৃদ্ধ নিহত হয়েছেন।

এ ঘটনায় পুলিশ কালাম মল্লিকের স্ত্রী চায়না বেগমকে আটক করেছে। শনিবার (২০ জানুয়ারি) এ ঘটনা ঘটে। তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন বাকেরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মাসুদুজ্জামান।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, জমি নিয়ে মধ্য জিরাইলে মো. নাজেম আলী মল্লিকের ছেলে মো. তোফাজ্জেল হোসেন (জিতেন) মল্লিকের সাথে একই বাড়ির মো. কাছেম আলী মল্লিকের পুত্র কালাম মল্লিকের বিরোধ চলে আসছিল। দফায় দফায় শালিস মীমাংসা হলেও বিরোধ থেকে যায়। এ নিয়ে আগামী ২৩ জানুয়ারি জমি সংক্রান্ত বিরোধ নিয়ে পুনরায় শালিসের তারিখ দেয় ২নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য লিটন সরদার।

এ নিয়ে ২০ জানুয়ারি সকালে ইউপি সদস্য লিটন বিরোধের এক পক্ষ জিতেন মল্লিককে ডেকে ৩নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ইউনুসকে শালিস মেনে নেয়ার জন্য চাপ প্রয়োগ করেন। জিতেন মল্লিক ইউনুস মেম্বারকে শালিস না মানার জন্য আপত্তি করেন। এ নিয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে ইউপি সদস্য লিটন ক্ষিপ্ত হয়ে জিতেন মল্লিকের উপরে হামলা চালান। হামলার জিতেন মল্লিক ঘটনাস্থলে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন। হত্যাকাণ্ডের পর ঘটনাস্থল থেকে ইউপি সদস্য লিটন পালিয়ে যায়।

বরিশাল জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মফিজুল ইসলাম ও বাকেরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মাসুদুজ্জামান ঘটনাস্থল পৌঁছে জিতেন মল্লিকের মৃতদেহ বরিশাল শের-ই-বাংলা (শেবাচিম) হাসপাতালের মর্গে পাঠান। এসময় কালাম মল্লিকের স্ত্রী চায়না বেগমকে আটক করে পুলিশ।

বাকেরগঞ্জ থানা ওসি বলেন, বাকি আসামিদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হবে।

এদিকে এ ঘটনায় জিতেন মল্লিকের বড় ছেলে বাহাদুর বাদী হয়ে চারজনকে আসামি করে বাকেরগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা করেছেন।

পিএনএস/আলআমীন

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech