আখেরী মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হলো শরীয়তপুর আঞ্চলিক ইজতেমা

  


পিএনএস ডেস্ক: ইহকালের কল্যাণ, পরকালের মুক্তি, মুসলিম উম্মাহর ঐক্য ও প্রতিটি ঘরে ঘরে দ্বীনের দাওয়াত পৌছে দেয়ার তৌফিক কামনা করে আখেরী মুনাজাতের মধ্য দিয়ে আজ শনিবার দুপুর সোয়া ১২টায় শেষ হয়েছে শরীয়তপুরের আঞ্চলিক ইজতেমা। মুনাজাতে প্রত্যেক মুসল্লি কান্নাভেজা আকুতিপূর্ণভাবে নিজ নিজ গুনাহ থেকে মুক্তির জন্য আল্লাহর দরবারে ক্ষমা প্রার্থনা করেন। মুসল্লিরা তাদের ক্ষমা লাভের আশায় তিন দিনব্যাপী আঞ্চলিক বিশ্ব ইজতেমার আখেরী মুনাজাতে অংশগ্রহণের জন্য শরীয়তপুর জেলা সহরসহ আশপাশে এলাকার হাজার হাজার মানুষ শরীয়তপুর জেলা সদর থেকে প্রায় পাঁচ কিলোমিটার পায়ে হেঁটে পৌছেন ইজতেমা ময়দানে। সকাল থেকেই ইজতেমা ময়দান ও আশপাশের এলাকাগুলো কানায় কানায় পরিপূর্ণ হয়ে হয়ে যায়। শরীয়তপুর জেলা সদরসহ আশপাশের অধিকাংশ ব্যবসায়ীরা তাদের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করে মুনাজাতে শরিক হন।

এ ছাড়াও শরীয়তপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য বিএম মোজাম্মেল হক, জেলা প্রশাসক মোঃ মাহমুদুল হোসাইন খান, পুলিশ সুপার সাইফুল্লাহ আল মামুনসহ প্রশাসনের কর্মকর্তা কর্মচারী ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দগন মুনাজাতে অংশ গ্রহণ করেছেন। মুনাজাত পরিচালনা করেন কাকরাইল মসজিদের জিম্মাদার সাথী মাওলানা মোহাম্মদ আলী। মুনাজাত শুরু হওয়ার সাথে সাথে আমিন আমিন ধ্বনিতে মূখর হয়ে উঠে শরীয়তপুরের আঙ্গারিয়া হাজত খোলা এলাকায় অনষ্ঠিত ইজতেমা ময়দান। বেলা ১২ টা ১০ মিনিটে মোনাজাত শুরু হয়ে প্রায় ১৩ মিনিট মুনাজাতে মুসলিম উম্মার ক্ষমা, রহমত, হেদায়েত, ঈমান, আমল, নামাজ, রোজাসহ মুসলিম ভ্রাতিত্বের বন্ধনের জন্য জন্য দোয়া করা হয়। এ সময় মুসল্লিরা আমিন ছুম্মা আমিন ধ্বনি বলে চোখের পানি ছেড়ে আল্লাহর দরবারে ক্ষমা প্রার্থনা করেন। ইজতেমা থেকে জামাত বন্দী হয়ে দিনের দাওয়াতের জন্য যে সকল তাবলীগ জামাত বের হয়েছে তাদের পরিবার পরিজনের হেফাজত এবং তাদের সফলতার জন্য দোয়া করা হয়। গত বৃহস্পতিবার বাদ জোহর আম বয়ানের মধ্য দিয়ে শরীয়তপুরের আঞ্চলিক বিশ্ব ইজতেমা শুরু হয়।

পিএনএস/আনোয়অর

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech