শেরপুরে সন্ত্রাসী কায়দায় শিক্ষকের জায়গা দখলের অভিযোগ

  

পিএনএস, শেরপুর (বগুড়া) সংবাদদাতা : বগুড়ার শেরপুর উপজেলায় সন্ত্রাসী কায়দায় মারপিট করে এক শিক্ষকের জায়গা দখলের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় নারীসহ তিনজন আহত হয়েছেন। এসময় সীমানা প্রাচীর ভেঙে দেড় লক্ষাধিক টাকা ক্ষতি সাধন করা হয়। ঘটনাটি ঘটে উপজেলার শাহবন্দেগী ইউনিয়নের শেরুয়া বটতলা রহমতপুর গ্রামে। উক্ত ঘটনায় ভুক্তভোগী ওই শিক্ষক বাদি হয়ে গতকাল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

অভিযোগে জানা যায়, শেরুয়া রহমতপুর গ্রামের হযরত আলীর নিকট থেকে একইগ্রামের ফিরোজা বেগম ও জাহিদুল ইসলাম কানাইকান্দর মৌজায় আট শতক জমি ক্রয় করেন। এরপর উক্ত জায়গায় সীমানা প্রাচীর দিয়ে ভোগদখল করে আসছেন। এরই ধারাবাহিকতায় গেল ১৪এপ্রিল সেখানে বসতবাড়ি নির্মাণ করছিলেন তারা। কিন্তু শেরুয়া বটতলা রহমতপুর গ্রামের নুরুল ইসলাম সন্ত্রাসী কায়দায় ভাড়াটে লোকজন নিয়ে বাড়ি নির্মাণ কাজে বাধা দেন। একইসঙ্গে জোরপূর্বক জমিটির সীমানা প্রাচীর ভেঙে ফেলে। এসময় তাদের এহেন কর্মকাণ্ডে বাধা দেয়ায় জমিটির মালিক জাহিদুল ইসলাম, তার স্ত্রী শ্যামলী বেগম ও মা ফিরোজা বেগমকে মারপিট করে আহত করেছে বলে অভিযোগে দাবি করা হয়েছে।

আহত ফিরোজা বেগমের ছেলে ভুক্তভোগী স্কুল শিক্ষক আলতাব হোসেন জানান, জমিটি ক্রয় করার পর দখল বুঝে নিয়ে যেভাবে ভোগদখল করছি। ঠিক সেইভাবেই উক্ত জায়গার ওপর বসতবাড়ি নির্মাণের কাজ করা হচ্ছিল। কিন্তু নুরুল ইসলাম সন্ত্রাসী কায়দায় ভাড়াটে লোকজন এনে সীমানা প্রাচীর ভেঙে দেয়। পাশাপাশি সম্পুর্ণ অন্যায়ভাবে বসতবাড়ি নির্মাণ কাজেও বাধা দিচ্ছেন বলে তিনি দাবি করেন। তবে বিষয়টি সম্পর্কে অভিযুক্ত নুরুল ইসলামের বক্তব্য জানতে চাইলে তার মোবাইলফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও ফোন বন্ধ থাকায় বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি। শেরপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সাহেব গনি অভিযোগ পাওয়ার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, অভিযোগটি তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল



 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech