আজ থেকে ছেউড়িয়ার আখড়াবাড়িতে সাধুরহাট

  

পিএনএস ডেস্ক : সাধক-বাউল ফকির লালন সাঁইয়ের ১২৮তম তিরোধান দিবস উপলক্ষে কুষ্টিয়ার ছেউড়িয়ায় আখড়াবাড়িতে বসছে সাধুরহাট। সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয় ও জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় কুষ্টিয়া লালন একাডেমির আয়োজনে সাঁইজির মাজার প্রাঙ্গণে মঙ্গলবার খেকে শুরু হচ্ছে লালন মেলা। লালন সাঁইয়ের তিরোধান দিবসের তিন দিনব্যাপি আয়োজনে থাকছে আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও গ্রামীন মেলা।

দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে এরই মধ্যে আখড়াবাড়িতে জড়ো হতে শুরু করেছেন হাজারও ভক্ত-অনুরাগী। তিরোধান দিবস পালন উপলক্ষে আখড়াবাড়িতে সকল প্রস্তুতি এরই মধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। লালনভক্তদের মুখে মুখে কথা আর সুরে এথন উচ্চারিত হচ্ছে সাঁইজির বাণী। মূল উৎসব শুরু হওয়ার আগেই আখড়ায় আসা বাউল সাধকরা মাজারের বিভিন্ন স্থানে অবস্থান নিয়ে গেয়ে চলেছে লালনের আধ্যাত্মিক মর্মবাণী। সবমিলিয়ে শুরুর আগে থেকেই লালন আখড়াবাড়িতে এখন উৎসবমুখর পরিবেশ।

মানুষ ভজলে সোনার মানুষ হবি’ শ্লোগান নিয়ে তিনদিনের লালন মেলা উপলক্ষে কালিগঙ্গা নদীর তীরে হরেক রকমের পণ্যের পসরা সাজিয়ে বসছেন ব্যবসায়ীরা। মেলায় থাকছে মুড়ি, মুড়কি, বাতাসা, জিলাপিসহ নাগরদোলা ও আসবাবপত্রের দোকান।

লালন মাজারের প্রধান খাদেম ফকির মহম্মদ আলী শাহ বলেন,সাঁইজির তিরোধান দিবসের এ সময় আখড়া দেশ-বিদেশ থেকে আগত লাখো প্রাণের পদভারে মুখরিত হয়ে ওঠে। প্রতিবছরের মতো এবারও লালনভক্তদের জন্য বিকালে অদিবাস,সকালে বাল্যসেবা ও দুপুরে পূর্ণসেবা রয়েছে।

বাংলা ১২৯৭ সালের ১ কার্তিক বাউল সম্রাট ফকির লালন শাহের মৃত্যু হয়। এরপর থেকেই কুমারখালির ছেঁউড়িয়ায় কালিগঙ্গা নদীর তীরে পালিত হয়ে আসছে লালন স্মরণোৎসব। অনুষ্ঠানকে ঘিরে প্রতিবছর লালনের আখড়া বাড়ি ছেঁউড়িয়ায় সমাগম হয় হাজার হাজার মানুষের। এ উৎসবকে ঘিরে দেশ-বিদেশ থেকে দলে দলে মানুষ ছুটে আসেন লালনের আখড়ায়। কয়েক দিন আগ থেকেই লালন ভক্ত ও বাউলরা আখড়াবাড়িতে হাজির হন।

পিএনএস/এএ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech