সোহেলের ভবিষ্যৎ নিয়ে দুঃচিন্তায় ভুগছেন তার পরিবার

  

পিএনএস, সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি : অভাব অনোটনের মধ্যেও ডিপ্লোমা পাশ করার পর জীবিকা নির্বাহের জন্য আর এফ এল কোম্পানিতে চাকুরী করে গত ঈদুল ফিতরের ছুটিতে গাইবান্ধার জেলার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার শ্রীপুর ইউনিয়নের সোনার পাড়া গ্রামের বাকী মিয়ার পুত্র সোহেল বাড়ীতে ফেরার পথে বিমান বন্দর রেল ষ্টেশনে ট্রেনে উঠার সময় প্রচন্ড ভিরের চাপে সোহেল ট্রেনের দরজায় দাড়ানো ছিল।

ট্রেনটি ছাড়িয়া দিলে অন্যান্য লোকজন ট্রেনে উঠার জন্য সোহেল এর হাত টেনে ধরে। সোহেল সরকার ভারসাম্য রক্ষা করতে না পেরে হাত ফসকিয়ে ট্রেনের নিচে পড়ে গেল তার এক হাত এক পা ট্রেনে কাটা পড়ে কাতড়াতে থাকলে মুমুষ অবস্থায় ফায়ার সার্ভিস এর লোকাজন এসে সোহেলকে সি এম এইচ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যায়। পরে তাহাকে অর্থপেডিক বিভাগে দীর্ঘ দিন চিকিৎসার পর সুস্থ করে তোলা হলেও ভাগ্যের নির্মম পরিহাস শেষ পর্যন্ত তার ডান হাত ডান পা কর্তন করিয়া প্রানে রক্ষা পায়।

বর্তমানে সোহেল এর ডান হাত ডান পা কৃত্রিম ভাবে সংযোজন করা প্রয়োজন। সোহেল এর বাবা একজন অবসর প্রাপ্ত সেনা সদস্য। পাঁচ ভাই তিন বোনের সংসারে সোহেল সবাইরই বড়। সোহেলের উপড় অনেকটা ভরসা ছিল তার পিতা মাতার । কিন্ত সে স্বপ্ন দুঃস্বপ্নে পরিনত তার বাবা মায়ের। আট ভাই বোনের সংসারে শেষ সম্বল টুকু বিক্রি করে দুই লক্ষাধিক টাকার বিনিময়ে সোহেল এর জীবন রক্ষা পেলেও , এখন বিছানা আর হুইল চেয়ারটি সোহেল এর একমাত্র ভরসা।

সোহেল এর বাবা সব কিছু বিক্রি করে তার চিকিৎসা করলেও তার কৃত্রিম হাত ও পা সংযোজন করার মতো সহায় সম্বল না থাকায় সে দেশের বিত্তবান ও হৃদয়বান ব্যক্তির নিকট তার ছেলের জন্য মানবিক সাহার্য্য চেয়ে আবেদন করেছেন। সাহার্য্য পাঠানোর ঠিকানা হিসাব নং ৮৬৮ সোনালী ব্যাংক কামারজানী শাখা, গাইবান্ধা। মোবাইল নম্বর-০১৭৪০-০৩০৮৫২

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech