গৌরীপুরে খুনের মামলার আসামিদের বাড়িতে অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের অভিযোগ

  

পিএনএস, ময়মনসিংহ প্রতিনিধি : ময়মনসিংহের গৌরীপুরে খুনের মামলার আসামিদের বাড়িতে অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের ঘটনা অভিযোগ উঠেছে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে। আসামিপক্ষের লোকজনের অভিযোগ মামলার বাদী পক্ষের লোকজন রোববার (১৩ জানুয়ারি) রাতে অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের মাধ্যমে তাদের প্রায় ৮০ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি করেছে।

স্থানীয় লোকজন জানান, গৌরীপুর উপজেলার সহনাটি ইউনিয়নে টেঙ্গাপাড়া গ্রামে আলু তোলাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে তাঁতীলীগ নেতা ইদ্রিস আলী (৫০)কে খুনের ঘটনা ঘটে। ইদ্রিস আলীর মৃত্যুর খবর শোনার পর থেকে আব্দুল কাদিরসহ অপর আসামিরা বাড়ি থেকে পালিয়ে আত্মগোপন করে। এরপর থেকে দুর্বৃত্তরা পিকআপ ভ্যানের মাধ্যমে তাদের বাড়িঘরের মালামাল লুট করে নিয়ে যেতে শুনেছেন।

স্থানীয় বাসিন্দা মৃত আবুল কাশেমের স্ত্রী রুমেলা খাতুন (৫৫), মৃত আব্দুল আলীর ছেলে বাচ্চু মিয়া (৪০), মৃত বাবর আলীর ছেলে দুলাল মিয়া (৪৫) জানান, রোববার (১৩ জানুয়ারি)রাত ১১টার দিকে মামলার প্রধান আসামি আব্দুল কাদিরসহ (৪৭) অপর আসামিদের নারী-পুরুষ শূন্য বাড়িতে আগুন জ্বলতে দেখেন। এ সময় তারা প্রতিবেশীদের সহযোগিতায় উক্ত আগুন নেভান। হত্যা মামলার আসামি আব্দুল কাদির ও তার ভাতিজা আল আমিনের (২৫) ৩টি ঘর আগুনে পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। এছাড়া মামলার অপর আসামিদের ঘরের সম্পূর্ণ মালামাল ও গরু-ছাগল লুট করা হয়েছে বলে শুনেছেন।

এদিকে নিহত ইদ্রিস আলীর ভাই আজিজুল হাকিম জানান, ‘আসামিপক্ষের বাড়িতে অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের ঘটনার সঙ্গে তারা জড়িত নন। আসামিপক্ষের লোকজন তাদের মিথ্যা মামলায় ফাঁসাতে ষড়যন্ত্রমূলক নিজেদের বাড়িতে অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের ঘটনা ঘটিয়েছে।’

নিহত ইদ্রিস আলীর ভাতিজা কবির আহমেদ কাজল (২১) জানান, ‘তার চাচা শফিকুল ইসলাম ফারুকের সঙ্গে ২ জানুয়ারি আলু চাষ নিয়ে প্রতিবেশী আব্দুল কাদিরের বাক-বিতন্ডা হয়। এর জের ধরে পরদিন ভোরে আব্দুল কাদির গংরা ধারালো অস্ত্র নিয়ে পরিকল্পিতভাবে অতর্কিতে তাদের বাড়িতে হামলা চালায়। এ সময় তিনিসহ তার বাবা হাদিস মিয়া (৬৫), চাচা ইদ্রিস আলী (৫০), আজিজুল হাকিমকে (৩৫) কুপিয়ে ও পিটিয়ে মারাত্মকভাবে জখম করে। ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৭ দিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে বৃহস্পতিবার (১০ জানুয়ারি) দিনগত রাত পৌনে ২ টায় তার চাচা ইদ্রিস আলী মারা যান।’

গৌরীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, ‘নিহতের ছোট ভাই শফিকুল ইসলাম ফারুক (৪৫) বাদী হয়ে গৌরীপুর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। মামলার আসামি আব্দুল কাদিরের স্ত্রী রোজিনা (৩৫) ও ভাতিজা আল মামুনকে (২৫) গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। আসামিপক্ষের বাড়িতে অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের ঘটনায় এ পর্যন্ত থানায় কেউ কোনো অভিযোগ করেনি। তবে ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে বলে আরও জানান তিনি।’

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল




 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech