আশপাশের মানুষ এগিয়ে আসায় ধর্ষণ থেকে বাঁচলো মাদ্রাসাছাত্রী ও গৃহবধূ

  

পিএনএস ডেস্ক : বগুড়ার শেরপুরে মাদ্রাসার চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী ও এক গৃহবধূকে পৃথক ভাবে ধর্ষণচেষ্টার ঘটনা ঘটেছে। এসব ঘটনায় দুইজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুরের দিকে পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করে। তারা হলেন- উপজেলার খামারকান্দি ইউনিয়নের শুভগাছা গ্রামের আব্দুস সামাদের ছেলে এনামুল হক (৩২) ও উপজেলার কুসুম্বী ইউনিয়নের উঁচুলবাড়িয়া গ্রামের মৃত আজহার আলীর ছেলে দলিল লেখক মো. শামীম হোসেন (৩৫)।

ভুক্তভোগী মাদ্রাসাছাত্রীর বাবা জানান, তার মেয়ে স্থানীয় শুভগাছা দাখিল মাদ্রাসায় চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ে। ছাগলের খাবার সংগ্রহের জন্য মঙ্গলবার সকালে শুভগাছা বিলপাড়া এলাকায় একটি ভুট্টাক্ষেতের পাতা তুলছিল সে। এ সময় গ্রামের এনামুল হক তাকে জাপটে ধরে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। পরে মেয়েটির চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এলে এনামুল পালিয়ে যান।

তিনি জানান, ঘটনার কিছু সময় পরই শেরপুর থানায় লিখিত অভিযোগ দেওয়া হলে এসআই ইকবাল হোসেন সর্ঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে অভিযান চালিয়ে পৌরশহরের তালতলা এলাকা থেকে এনামুলকে গ্রেফতার করে।

অপরদিকে উপজেলার কুসুম্বী ইউনিয়নের উঁচুলবাড়িয়া গ্রামে এক গৃহবধূকেও ধর্ষণের চেষ্টা করা হয়েছে।

ওই নারীর স্বামী জানান, দীর্ঘদিন ধরে তার স্ত্রীকে একই গ্রামের আজাহার আলীর ছেলে দলিল লেখক মো. শামীম হোসেন উত্যক্ত করে আসছিলেন। এমনকি নানা কায়দায় তাকে কু-প্রস্তাব দেন শামীম। এতে রাজী না হওয়ায় সোমবার সন্ধ্যায় বাড়িতে ঢুকে তার স্ত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা চালান। এ সময় স্ত্রীর চিৎকারে আশপাশের লোকজন এসে শামীমকে হাতেনাতে আটক করে থানায় খবর দেয়। পরে এসআই আতোয়ার রহমান ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে শামীমকে থানায় নিয়ে আসেন। এ ঘটনায় তার স্ত্রী থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

শেরপুর থানার ওসি (তদন্ত) বুলবুল ইসলাম বলেন, গৃহবধূকে ধর্ষণচেষ্টার ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। এসব ঘটনায় জড়িত দুইজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

পিএনএস-জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech