দুটি মাথাসহ ৫মণ হরিণের গোশত উদ্ধার

  


পিএনএস ডেস্ক: বঙ্গোপসাগর তীরবর্তী বনফুল আবাসন সংলগ্ন একটি ছোট খাল থেকে দুটি মাথা ও দুটি চামড়াসহ প্রায় ৫মণ হরিণের গোশত জব্দ করা হয়েছে। এসময় হরিণ ধরার ফাঁদসহ একটি ছোট ট্রলার আটক করা হয়। শনিবার (১৮ মে) ভোররাত সাড়ে ৩টার দিকে বনবিভাগের চরলাঠিমারা বিটের কর্মকর্তা মোঃ বদিউজ্জামান খান সোহাগের নেতৃত্বে এগুলো জব্দ করা হয়। জব্দকৃত ট্রলারটি কোস্টগার্ডের মাঝি মোঃ ইলিয়াসের বাবা আব্দুর রহমান সিকদারের।

বিট কর্মকর্তা মোঃ বদিউজ্জামান খান সোহাগ জানান, বঙ্গোপসাগর তীরবর্তী চরলাঠিমারা বনফুল আবাসন সংলগ্ন একটি ছোট খালে হরিণের গোশত নিয়ে অবস্থান করছিল কিছু মানুষ। পরে শনিবার ভোররাত সাড়ে ৩টার দিকে এলাকাবাসী টের পেয়ে ট্রলারের কাছে যাওয়া মাত্রই ট্রলারে থাকা লোকজন পালিয়ে যায়।

পরে বনবিভাগের লোকজনকে খবর দিলে ঘটনাস্থলে গিয়ে হরিণের গোশত ও ট্রলার জব্দ করা হয়। পরে পাথরঘাটা থানা পুলিশকে জানালে পুলিশ ও কোস্টগার্ড ঘটনাস্থলে হাজির হন। তাদের উপস্থিতিতে দুটি চামড়া, দুটি মাথা থাকলেও প্রায় ৫মণ হরিণের গোশতসহ ৩০টি রান পাওয়া যায়। ধারণা করা হচ্ছে ৮টি জীবিত হরিণ জবাই করা হয়েছিল।

বিট কর্মকর্তা আরো জানান, কোস্টগার্ডের মাঝি মোঃ ইলিয়াসের বাবা আব্দুর রহমান সিকদার এলাকায় হরিণ পাচারকারী হিসেবে চিহ্নিত। ওই ট্রলারটি আব্দুর রহমান সিকদারের বলে এলাকাবাসী নিশ্চিত করেছেন। দুই বস্তা হরিণ ধরার ফাঁদসহ ট্রলারটি বনবিভাগের জিম্মায় রয়েছে। ভ্রাম্যমান আদালতের নিদের্শনা পেলে উদ্ধারকৃত গোশতগুলো মাটি চাপা দেয়া হবে। এ বিষয়ে বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ আইনে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

কোস্টগার্ডের পাথরঘাটা স্টেশনের কমান্ডার সাব-লেফটেন্যান্ট জহুরুল ইসলাম বলেন, ঘটনা শোনার সাথে সাথেই আমরা ঘটনাস্থলে যাই। গোশতসহ জব্দকৃত ট্রলারটি কোস্টগার্ডের মাঝি ইলিয়াসের বাবার আব্দুর রহমান সিকদারের বলে জানান তিনি।

পিএনএস/আনোয়ার

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech