‘স্কুলের ভিতরে নেশায় বাধা দেয়ায় শিক্ষককে মারপিট’

  

পিএনএস ডেস্ক : স্কুলের অভ্যন্তরে নেশা করতে বাধা দেয়ায় সিরাজগঞ্জের তাড়াশে এক শিক্ষককে মারপিট করেছে স্কুলের ছাত্র ও তার স্বজনরা। আহত আইয়ুব আলী ওই স্কুলের গনিত বিভাগের শিক্ষক। অভিযুক্ত ছাত্র সাব্বির হোসেন ওই বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্র ও উপজেলার নওগাঁ ইউনিয়নের বিপাচান গ্রামের আবুল কালামের ছেলে। উপজেলার রঘুনিলী মঙ্গলবাড়িয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে মঙ্গলবার সকালে এ ঘটনা ঘটে।

এদিকে, শিক্ষককে মারপিটের ঘটনায় অর্ধ-বার্ষিক ও প্রাক-নির্বাচনী পরীক্ষা বর্জন করে বিক্ষোভ করেছে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা। পরে পুলিশের উপস্থিতিতে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে পরিক্ষায় অংশ নেন তারা।
আহত শিক্ষক আইয়ূব আলী অভিযোগ করে বলেন, অষ্টম শ্রেণির ছাত্র সাব্বির হোসেন শ্রেণি কক্ষে এবং বিদ্যালয় মাঠের মধ্যে প্রতিনিয়ত (ড্যান্ডি) নেশা করে। তার সহপাঠি শ্রী শিবনাথের এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে সোমবার সাব্বিরকে বিদ্যালয়ে ডেকে শাসন করার সময় সে তর্কে জড়িয়ে পড়লে একটা থাপ্পড় মারা হয়। এরই জেরধরে মঙ্গলবার সকালে বিদ্যালয়ে আসার পথে ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থী সাব্বির, তার ভাই রাব্বি, চাচা আলাউদ্দিন এবং রাব্বি’র বন্ধু কামরুল ইসলাম উলিপুর বিপাচান ব্রীজ এলাকায় পথ আটকে তাকে কিল-ঘুষি মারে।

এ সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেন।

এ অবস্থায় সাব্বির ও তার স্বজনরা সকাল সাড়ে ১১টার দিকে বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে শিক্ষার্থী ও স্থানীয়দের সামনেই আবারও শিক্ষক আইয়ুব আলীকে স্টিলের স্কেল দিয়ে পিটিয়ে মাথা ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম করে।

ওই বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী শিবনাথ, আসিফ, রাজু, ইব্রাহিম, রাবেয়া ও মরিয়ম খাতুন বলেন, বিদ্যালয় চলাকালীন বিদ্যালয় মাঠের মধ্যে প্রবেশ করে গনিত শিক্ষককে মারপিট করতে থাকলে প্রতিবাদের মুখে সাব্বির ও তার স্বজনরা পালিয়ে গেছে। রঘুনিলী মঙ্গলবাড়িয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রবি উজ্জামান নান্নু বলেন, ঘটনার সময় তিনি লাইব্রেরীতে বসে ছিলেন। বাইরে বিশৃঙ্খলার বিষয়টি টের পেয়ে তিনি পুলিশ খবর দেন।

তাড়াশ থানা ওসি মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছালে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। পরে শিক্ষার্থীরা পরিক্ষায় অংশ নেন।

তাড়াশ উপজেলা স্থাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক ফরহাদ হোসেন জানান, আহত শিক্ষককে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য সিরাজগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এ বিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ফকির জাকির হোসেন বলেন, একজন শিক্ষককে মারপিট করা দুঃখজনক ও নিন্দনীয় অপরাধ।

অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে নিয়ম অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech