কুষ্টিয়ায় স্ত্রীকে হত্যার পর স্বামীর আত্মহত্যার অভিযোগ

  


পিএনএস ডেস্ক: কুষ্টিয়ার কুমারখালী থেকে দিপুল কুমার রায় (৩১) ও সোহাগী রানী (২৫) নামে এক দম্পতির লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। আজ শুক্রবার সকালে উপজেলার পান্টি ইউনিয়নের ভালুকা গ্রাম থেকে তাদের লাশ উদ্ধার করা হয়। মৃত সোহাগী রানী ভালুকা গ্রামের ভরতচন্দ্র মন্ডলের মেয়ে আর দিপুল কুমার রায় ঝিনাইদহ জেলার শৈলকূপা উপজেলার ভবানীপুর গ্রামের কোমল কুমার রায়ের ছেলে।

প্রতিবেশীরা জানান, এ বছরের ২৭ জুন তাদের বিয়ে হয়েছে। দূর্গা পূজায় সোহাগী স্বামীসহ বাবার বাড়িতে বেড়াতে এসেছিলেন।

মৃত সোহাগীর চাচাতো ভাই লিপু জানান, আজ শুক্রবার সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে তার চাচাতো বোন শিল্পী সোহাগীদের কক্ষের দরজার কড়া নাড়েন। অনেক ডাকাডাকির পরও ভেতর থেকে সাড়াশব্দ না পেয়ে প্রতিবেশী ও পরিবারের সদস্যরা দরজা ভেঙে ফেলেন। পরে তারা ঘরের ভেতরে ঢুকে দেখতে পান সোহাগী রানী বিছানায় পড়ে আছেন। দিপুল ঘরের আড়ার সঙ্গে ওড়না প্যাঁচানো অবস্থায় ঝুলে আছেন। তিন আরো বলেন, আগের দিন রাত সাড়ে ১০টার দিকে খাবার খেয়ে তারা ঘুমিয়ে পড়েন। তাদের মধ্যে কোনো ধরনের বিরোধের কথা জানেন না তারা।

কুমারখালী থানার ওসি মিজানুর রহমান জানান, খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে ওই দম্পতির লাশ উদ্ধার করে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, স্ত্রীকে হত্যার পর স্বামী আত্মহত্যা করেছেন।

পিএনএস/আনোয়ার

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech