লক্ষ্মীপুরে গ্রাহকের টাকা আত্মসাতের অভিযোগে পোস্ট মাস্টার গ্রেপ্তার

  

পিএনএস, লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি : লক্ষ্মীপুরে গ্রাহকদের সঞ্চয়কৃত টাকা আত্মসাতের অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) অভিযান চালিয়ে শ্রীবাস চন্দ্র দে নামে এক পোষ্ট মাস্টারকে গ্রেপ্তার করেছে। সোমবার সন্ধ্যায় ওই পোষ্ট মাস্টারকে লক্ষ্মীপুরের চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট চন্দ্রগঞ্জ আমলী আদালতে হাজির করা হলে তিনি গ্রাহকদের টাকা আত্মসাতের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেন। এর আগে দুপুরে নোয়াখালীর মাইজদি সুপার মার্কেট এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেফতারকৃত শ্রীবাস লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার দত্তপাড়া ইউনিয়নের উপ-ডাকঘরের সাব পোস্ট মাস্টার (বর্তমানে সাময়িকভাবে বরখাস্ত) ছিলেন।

এদিকে দুদক নোয়াখালী কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, পোস্ট মাস্টার শ্রীবাস চন্দ্র দে’র বিরুদ্ধে ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা আত্মসাতে ঘটনায় গত ১৩ মে চন্দ্রগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়। সদর উপজেলার দত্তপাড়ার দক্ষিণ মাগুড়ী গ্রামের ভূক্তভোগী হাবিব উল্যা এ মামলা দায়ের করেন।

পরদিন তিনি নোয়াখালী বিভাগের ডেপুটি পোস্ট মাস্টার জেনারেলের কাছেও লিখিত অভিযোগ করেছেন। এর ভিত্তিতে নোয়াখালী বিভাগের ডেপুটি পোস্ট মাস্টার জেনারেল মো. মনিরুজ্জামান বিষয়টি তদন্তের জন্য দুদকে অভিযোগ করেন। পরবর্তীতে দুদকের তদন্তে শ্রীবাসের বিরুদ্ধে আরও ৪ গ্রাহকের ২৭ লাখ ৭৭ হাজার টাকা আত্মসাতের প্রমাণ পাওয়া যায়।

এরমধ্যে সদর উপজেলার শিল্পির ৫ লাখ টাকা, তোতারখিল গ্রামের রাসেলের ৫ লাখ টাকা, বড়ালিয়া গ্রামের লাখী রানী সূত্র ধরের ৩ লাখ টাকা ও গণেশ্যামপুর গ্রামের কামাল হোসেনের ১৪ লাখ ৭৭ হাজার টাকা আত্মসাত করার সত্যতাও পাওয়া যায়। এসব টাকার পরিমাণ শুধু গ্রাহকের পাশ বহিতে উত্তোলন করা হয়েছে। কিন্তু অন্যান্য রেকর্ড এবং সরকারি তহবিলে হিসাবভূক্ত করা হয়নি।

দুদকের নোয়াখালী সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক সুবেল আহমেদ জানান, ৩০ লাখ ২৭ হাজার টাকা আত্মসাতের ঘটনাটি স্বীকার করে পোষ্ট মাস্টার (সাময়িকভাবে বরখাস্ত) শ্রীবাস লক্ষ্মীপুরের চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট চন্দ্রগঞ্জ আমলী আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন। আদালতের বিচারক জুয়েল দেব তাকে জেলা কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন।

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech