ডিমলায় অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রীকে অপহরণ ঘটনায় থানায় মামলা

  

পিএনএস, ডিমলা (নীলফামারী) প্রতিনিধি : নুরবানু (১৪) অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রীকে অপহরন ও সহায়তার অভিযোগে গত ৩-নভেম্বর রবিবার রাতে ডিমলা থানায় মিন্টু হোসেন (২৮) পিতা সাইদুল হোসেন ও বাবুল হোসেন (২৬) পিতা আমিনুর রহমান এর নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা ২-৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলা সুত্রে জানা যায়, নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার ঝুনাগাছ চাপানী ইউনিয়নের জেহদ্দী পাড়ার বসবাসরত মোছা: আনোয়ারা বেগমের ছোট মেয়ে নুরবানুকে সাইদুল ইসলামের ছেলে মিন্টু হোসেন বিভিন্ন ধরনের প্রলোভন দেখিয়ে বিয়ে করার কথা বলে প্রায় উত্যক্ত করে আসছিলো। বিষয়টি নুরবানু তার পরিবারের কাছে জানালে মিন্টু ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে।

এমতাবস্থায় গত ১-নভেম্বর বিকাল ৫টার সময় নুরবানু কলম আনার কথা বলে বাড়ির পাশে তালতলা বাজারে গেলে পরবর্তীতে আর ফিরে আসে না। নুরবানু বাড়িতে ফিরে না আসায় তালতলা বাজারসহ আশপাশের সমস্ত এলাকা জুড়ে অনেক খোঁজা-খুঁজি করতে থাকলে একই এলাকার লেবু মিয়া, মশিয়ার রহমান, অহিদুল ইসলাম সহ আরো অনেকে বলে মিন্টু ও তার সহযোগী বাবুল হোসেন বিকাল আনুমানিক ৫টা ৩০ মিনিটে একটি মাইক্রেবাসে নুরবানুকে অপহরন করে নিয়ে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় অপহৃতার মা আনোয়ারা বেগম বাদী হয়ে দুই জনের নাম উল্লেখ করে তাদের বিরুদ্ধে অপহরন ও সহায়তার অভিযোগে থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন (সংশোধন/০৩) এর ৭/৩০ ধারায় মামলা দায়ের করেন। যাহার মামলা নং- ৪, তারিখ ৩-নভেম্বর-১৯ ইং।

ডিমলা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মফিজ উদ্দিন শেখ মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, উক্ত বিষয়ে থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। অপহৃত ভিক্টিমকে উদ্ধার করার অভিযান অব্যাহত আছে । এরই মধ্যে সহযোগী বাবুল হোসেনকে গ্রেফতার করে নীলফামারী জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। বাকী আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

উল্লেখ্য যে, অসহায় বাদীনি আনোয়ারা বেগম জীবিকা নির্বাহের জন্য মানুষের বাড়ীতে কর্ম করে বহু কষ্টে সংসার চালাতো সে । এখন পর্যন্ত মেয়েকে উদ্ধার করতে না পেয়ে অসহায় আনোয়ারা মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরছে।

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন