অপহরণের পর ধর্ষণের ঘটনায় সাবেক ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে মামলা

  

পিএনএস ডেস্ক : ঝালকাঠিতে এক কিশোরীকে (১৩) অপহরণের পর আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগে শনিবার রাতে মামলা হয়েছে সাবেক ইউপি সদস্য এমদাদুল হকসহ দু’জনের বিরুদ্ধে।

এই ঘটনা মোবাইল ফোনে ধারণ করে ইন্টারনেটের মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ারও হুমকি দিয়েছে এমদাদ এমন অভিযোগ করেছে ওই কিশোরী।

কিশোরীর বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, গত ১৫ নভেম্বর সদর উপজেলার বাউকাঠি গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে পিপলিতা গ্রামে ফুপুর বাড়িতে বেড়াতে যাওয়ার উদ্দেশ্যে রওনা হয় ওই কিশোরী। এই সময় নবগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক সদস্য প্রতিবেশী এমদাদুল তাকে জোর করে স্থানীয় এক বাড়িতে নিয়ে আটকে রেখে ধর্ষণ করে। আর তা মোবাইল ফোনে ধারণ করে এমদাদুলের আত্মীয় বর্ষা নামে একটি মেয়ে।

এমদাদুল ওই ভিডিও ইন্টারনেটে ছেড়ে দেওয়ার কথা বলে ওই কিশোরীকে একাধিকবার ধর্ষণ করেন। এক পর্যায়ে ঘটনা এলাকায় জানাজানি হতে পারে এই আশঙ্কায় এমাদাদুল ওই কিশোরীকে বাখরগঞ্জ থানার বোয়ালিয়া এলাকায় ফাতেমা নামের এক নারীর বাড়িতে আটকে রাখেন।

এদিকে ঘটনার দিন ১৫ নভেম্বর রাতেই ভুক্তভোগী কিশোরীর বাবা মেয়ে বাড়ি না ফেরায় ঝালকাঠি থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন।

ঝালকাঠি থানার ওসি খলিলুর রহমান বলেন, মেয়েটি যখন থানায় ছিল তখন ওকে এবং ওর বাবাকে অনেক বার জিজ্ঞেস করেছি কোন ঘটনা আছে কিনা, কিন্তু তখন ওরা কোন অভিযোগ করেননি। পরে লোকজনের মুখে ধর্ষণের ঘটনা শুনে শনিবার মেয়েটির বাড়িতে অফিসার পাঠিয়ে ঘটনার সত্যতা পেয়েছি। পরে রাতে ভুক্তভোগীর মা বাদী হয়ে সদর থানায় লিখিত অভিযোগ দিলে এমদাদুল ও সহযোগী হিসেবে বর্ষার নামে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা রেকর্ড করা হয়েছে।

পিএনএস-জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন