খাদ্য কর্মসূচির ১৪৩ বস্তা চাল পাচারের সময় ডিলারসহ গ্রেপ্তার ২

  

পিএনএস ডেস্ক : গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে সরকারি খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ১০ কেজির চাল কালোবাজারে বিক্রির উদ্দেশ্যে অন্য জেলায় পাচারের সময় ডিলার ও নছিমনের চালককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় ১৪৩ বস্তা চালসহ নছিমনটি জব্দ করে পুলিশ।

গ্রেপ্তার হওয়া ব্যক্তিরা হলেন—গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার শালমারা ইউনিয়নের মিরাপাড়া গ্রামের চালের ডিলার জিল্লুর রহমান (৫৫) ও সোনাতলা উপজেলার চমরগাছা গ্রামের নছিমনচালক শাওন (৩৫)।

গোবিন্দগঞ্জ থানা পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, গতকাল রাতে জিল্লুর রহমানের ডিলার পয়েন্ট থেকে সরকারের খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির সিলযুক্ত ১৪৩ বস্তা চাল চুরি করে। এরপর কালোবাজারে বিক্রির উদ্দেশ্যে নছিমন বোঝাই করে বগুড়ার সোনাতলার উদ্দেশে রওনা হলে শাখাহাতী বলুয়া নামক স্থানে এলাকাবাসী জানতে পেরে তাদের আটক করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও পুলিশকে খবর দেয়।

খবর পেয়ে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রামকৃষ্ণ বর্মনের নেতৃত্বে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হলে ঘটনার সত্যতা খুঁজে পায়।

এ সময় উপস্থিত লোকজনের সামনে ওই নছিমনচালককে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে তিনি বলেন, ‘আমি জিল্লুর রহমানের ডিলার পয়েন্ট থেকে গাড়ি লোড দিয়েছি এবং এ চালগুলো জিল্লুর রহমানের। চালগুলো সে বিক্রির উদ্দেশ্যে সোনাতলায় নিয়ে যাওয়ার জন্য গাড়ি ভাড়া করায় আমি সোনাতলার উদ্দেশে চাল নিয়ে যাচ্ছিলাম।’

ওই ব্যক্তি আরও বলেন, ‘ইতিপূর্বে আরও ৪/৫ বার ডিলার জিল্লুর রহমান আমার গাড়িতে করে সোনাতলা ও গাবতলীর পীরগাছা এলাকায় চাল নিয়ে বিক্রি করেছে।’

চাল পাচারে জড়িত থাকার অভিযোগে ডিলার জিল্লুর রহমানকে ঘটনাস্থল থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। একই সঙ্গে নছিমন চালক শাওনকেও (৩৫) গ্রেপ্তার করা হয়।

গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রামকৃষ্ণ বিষয়টি নিশ্চিত করে করে জানান, এ বিষয়ে গোবিন্দগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের হয়েছে।

গোবিন্দগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) আফজাল হোসেন জানান, দণ্ডবিধির ৪০৯ ধারায় মামলাটি রুজু করা হয়েছে। দুজনের নাম উল্লেখ করে ও অজ্ঞাত ৩-৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে।

অজ্ঞাতদের চিহ্নিত করার চেষ্টা চলছে বলেও জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা।

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন