‘চাল চুরি’ ঠেকালেন নির্বাহী অফিসার!

  

পিএনএস, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রতিনিধি : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা সরাইল উপজেলা পাকশিমুল ইউনিয়নে এলাকায় গরিব ও দুস্থ মানুষদের জন্য বরাদ্দকৃত খাদ্য বান্ধব কর্মসূচির ১০ টাকা কেজি দরের চালের বেশকিছু বস্তা পাচারের খবরে বুধবার (২৭ মে) থেকে থানা পুলিশকে জানিয়ে আসছে স্থানীয় একাধিক ব্যক্তি। কিন্তু ব্যস্ততা দেখিয়ে বিষয়টি আমলে নেয়নি পুলিশ। পরদিন বৃহস্পতিবার একই লোকজন ফের এ চাল পাচারের বিষয়টি থানায় ফোন করে জানান। কিন্তু এবারও ব্যস্ততার দোহাই দিয়ে ফোন লাইন কেটে দেন দায়িত্বশীল কর্তাব্যক্তি।

অবশেষে বৃহস্পতিবার (২৮ মে) রাত পৌনে ৮টার দিকে গরিবের চাল চুরি ও পাচারের বিষয়টি মুঠোফোনে জানানো হয় সরাইল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এ এস এম মোসাকে। তিনি বিষয়টি জেনে তাৎক্ষণিক অরুয়াইল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জকে নির্দেশ দেন সরেজমিনে গিয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার।

প্রত্যক্ষদর্শী লোকজন জানান, রাত সাড়ে ৮টার দিকে অরুয়াইল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ হোসাইন মোহাম্মদ কামরুজ্জামান সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে পাকশিমুল বাজার সংলগ্ন নৌঘাট এলাকায় অভিযান চালিয়ে হাবিবুর রহমান ও আজিজুর রহমানের বাড়ি থেকে ২১ বস্তা সরকারি চাল জব্দ করেন। এসব চালের বস্তায় খাদ্য অধিদপ্তরের সীল যুক্ত সহ প্রতিটি বস্তায় লেখা রয়েছে "শেখ হাসিনার বাংলাদেশ, ক্ষুধা হবে নিরুদ্দেশ।" এসময় পুলিশ অভিযানে পাকশিমুল বাজার এলাকায় একটি রাইছ মিলে এবং একটি 'স' (করাত) মিলে আরও কয়েক বস্তা সরকারি চাল পাওয়া যায়। কিন্তু রাতে মিল দুটিতে লোকজন না থাকায় পুলিশ এ চালের বস্তাগুলো জব্দ করেনি। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন স্থানীয় একাধিক ব্যক্তি।

স্থানীয় লোকজন জানান, ক'দিন আগেও পাকশিমুল ইউনিয়নের একটি গ্রাম থেকে ২০ বস্তা সরকারি চাল জব্দ করে পুলিশ। আজ নৌকাঘাট এলাকা থেকে ২১ বস্তা চাল উদ্ধার হলো। এখানে একদিন আগে আরও বেশকয়েক বস্তা সরকারি চাল ছিল। সম্ভবত গতরাতে এসব চাল নৌপথে পাচার করা হয়েছে। বুধবার থেকে বিষয়টি থানাপুলিশকে জানানো হয়। পরে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে জানানো হলে তাঁর হস্তক্ষেপে গরিবের এই চাল চুরি ঠেকানো হয়। কিন্তু এখানে একের পর এক চাল চুরির ঘটনা ঘটলেও অজানা কারণে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা ধরাছোঁয়ার বাইরে থেকে যাচ্ছে, এমন অভিযোগ পাকশিমুল এলাকার অনেকের।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে অরুয়াইল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ হোসাইন মোহাম্মদ কামরুজ্জামান বলেন, বৃহস্পতিবার রাতে ইউএনও স্যারের ফোন পেয়ে পাকশিমুল বাজার সংলগ্ন নৌঘাট এলাকায় অভিযান চালিয়ে ২১ বস্তা সরকারি চাল জব্দ করা হয়। এ ঘটনায় কাউকে আটক করা যায়নি।

সরাইল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এ এস এম মোসা বলেন, রাতে গোপন সূত্রে খবর পেয়ে আমি ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠালে এসব চালের বস্তা উদ্ধার হয়। চালগুলো নিয়মমাফিক দুস্থদের মাঝে বিনামূল্যে বিতরণ করা হবে এবং এ চাল পাচারের সঙ্গে জড়িতদের চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নেওয়ার চেষ্টাও চালানো হবে।

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল


 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন