বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন ব্যারিস্টার সুমন

  

পিএনএস ডেস্ক : স্ত্রী-সন্তানদের দেখতে যুক্তরাষ্ট্রে যেতে চেয়েছিলেন ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন। এজন্য টিকিট কিনতে টাকা জমাচ্ছিলেন তিনি। তবে টিকিট কেনা আরও হয়নি। টিকিট কেনার জন্য জমানো সেই টাকা দিয়ে একজন অসচ্ছল ফুটবলারকে ব্যাটারিচালিত ইজিবাইক (টমটম) কিনে দিলেন আলোচিত এই ব্যারিস্টার।

ওই তরুণ ব্যারিস্টার সুমন ফুটবল একাডেমির নিয়মিত সদস্য।


ভালো ফুটবলার হলেও আর্থিক অসচ্ছলতার কারণে তার খেলা বন্ধের উপক্রম হচ্ছিল। এমনকি অভাবের কারণে সুমন একাডেমির নিয়মিত খেলায় অংশ নিতে পারতেন না। বিষয়টি ব্যারিস্টার সুমনের নজরে আসলে তিনি তার যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ার টিকিটের জন্য জমানো টাকা দিয়ে একটি ইজিবাইক কিনে দিয়েছেন ওই তরুণের জন্য। শুক্রবার (২৭ নভেম্বর) বিকেলে হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে ফুটবল মাঠে ইজিবাইকটি তার কাছে হস্তান্তর করেন।

এর দাম পড়েছে এক লাখ ৫৪ হাজার টাকা।

ইজিবাইক হস্তান্তরের পর তার ফেসবুক লাইভে এসে ব্যরিস্টার সুমন বলেন, ‘স্ত্রী-সন্তানকে দেখতে আগামী মাসে আমেরিকা যাওয়ার কথা ছিল আমার। টিকিটের জন্য এক লাখ ৬০ হাজার টাকাও জমিয়েছিলাম। কিন্তু পরে আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি আমার ১৫ দিনের আনন্দের পরিবর্তে ওই যুবকের পরিবারে সচ্ছলতা ফিরিয়ে দেব।’

তিনি আরও বলেন, ‘ছেলেটি আমার ফুটবল একাডেমিতে নিয়মিত খেলে। তার সংসারে মা ও এক বোন রয়েছে। টমটম (ব্যাটারিচালিত ইজিবাইক) চালিয়ে সংসার চালায়। কিন্তু নিজের টমটম না থাকায় এর মালিককে প্রতিদিন ৩০০ টাকা ভাড়া দিতে হতো। যা পরিশোধ করে তার চাহিদামতো টাকা অবশিষ্ট থাকতো না। আবার তাকে ছুটিও দেয়া হতো না। যে কারণে সে নিয়মিত খেলাধুলায় অংশ নিতে পারছিল না।’

ব্যারিস্টার সুমন আরও বলেন, ‌‘ওই যুবক লেগ ডিফেন্স খেলোয়াড়। ডান এবং বাম, দু’পায়েই ভালো খেলে। কিন্তু অভাবের কারণে ভবিষ্যত খারাপ হয়ে যাচ্ছিল। সমাজে অনেকেই আছেন যারা ১৫ দিনের সুখ জলাঞ্জলি দিলে একটি মানুষের জীবন বদলে যেতে পারে। তার পরিবারের কষ্ট দূর করতে আমি আমার ১৫ দিনের সুখ ত্যাগ করেছি। যার মাধ্যমে পৃথিবীতে সর্বশ্রেষ্ঠ প্রাণী মানুষের কর্তব্য পালন করেছি।’

শুধু বক্তব্যবাজি না করে এভাবে মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে বাংলাদেশকে বদলে দেয়ার জন্য সবার প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন আলোচিত এই ব্যারিস্টার।

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন