ডিমলায় চুরি ও হত্যা চেষ্টার অভিযোগ

  

পিএনএস, নীলফামারী প্রতিনিধি : নীলফামারীর ডিমলায় এক প্যারালাইসেস রোগীর বাড়ি চুরি ও হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। আর এই অভিযোগ করেন, উপজেলার খালিশা চাপানী ইউনিয়নের ডালিয়া বাইশপুকুর গ্রামের মৃত. ছপর উদ্দিন ওরফে(ঝাড়ু) মামুদের ছেলে সহির উদ্দিন(৭০)। এঘটনায় তিনি নীলফামারী ডিমলা বিজ্ঞ আমলী আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত ০৫ জানুয়ারী মঙ্গবার চুরির উদ্দেশ্যে রাত সাড়ে ৩টায় বাদীর শয়ন ঘর ও রান্না ঘরে প্রবেশ করে দূবৃক্তরা। বাদীর শয়ন ঘরের শোকেজের ড্রয়ার ভেঙ্গে গরু ক্রয়ের ৬৬ হাজার টাকা এবং আলমারীতে থাকা দুই ভরি স্বর্ণালংকার যার আনুমানিক মুল্য ০১ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা চুরি করে। চুরি করে যাওয়ার সময় র্দূবৃক্তদের ফিসফিস শব্দ কানে গেলে বাদীর ঘুম ভেঙ্গে যায়। এসময় হাতে থাকা টর্চলাইট জালালে র্দুবৃক্তদের চিনতে পেয়ে আতœচিৎকার দেয়। এবং র্দুবৃক্তদের নাম ধরে চিৎকার দিলে সহির উদ্দিনকে হত্যার উদ্দেশ্যে হাত-পা ও মুখ চিপে ধরে। স্থানীয়দের উপস্থিতি টের পেয়ে র্দুবৃক্তরা পালিয়ে যায়। সহির উদ্দিন একজন প্যারালাইসেস রোগী, তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে ধস্তাধস্তির এক পর্যায় তিনি অসুস্থ্য হয়ে পরেন। গ্রাম্য চিকিৎসক দ্বারা সুস্থ্য হলে, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদেরকে চুরি ও হত্যার বিষয়টি অবগত করে এবং র্দুবৃক্তদের নাম প্রকাশ করেন। স্থানীয় ভাবে সালিশ বৈঠকে অভিযুক্ত ব্যক্তিরা উপস্থিত না হলে, ডিমলা থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেন। থানায় অভিযোগটি গ্রহন না করলে গ্রাম্য মাতব্বরদের পরামর্শ ক্রমে নীলফামারী ডিমলার বিজ্ঞ আমলী আদালতে ১৪৩/৪৪৮/৪৫৭/৩০৭/৩৮০/৩২৩/৫০৬/৩৪/১১৪ ধারা মতে ১৩ জনকে আসামী করে গত ১১ জানুয়ারী একটি পিটিশন মামলা দায়ের করেন। যার নং-৪২১/২০২১।

অভিযুক্ত আসামীরা হলেন, বাইশপুকুর গ্রামের মৃত. আবু বক্করের ছেলে আশরাফুল ইসলাম(২৬), বছির উদ্দিনের ছেলে আবুল হোসেন(৪৫), মৃত. আবু বক্করের ছেলে আসাদুল ইসলাম জাদু(২২), মৃত. খেজো মামুদের ছেলে রমজান আলী(৫৫), মৃত. হনোদ্দি মামুদেও ছেলে আবু বক্কর সিদ্দিক(৪৭), আবুল হোসেনের ছেলে ফরিদুল ইসলাম(২২), আব্বাস আলীর দুই ছেলে মশিয়ার রহমান(৪৬) ও মোবারক আলী(২৭)। এছাড়াও গড্ডিমারী খাণের বাজার এলাকার মৃত. নেহাল উদ্দিনের তিন ছেলে সহিদুল ইসলাম ভুট্টু(৪৪), আমিনুর রহমান(৫৫) সিদ্দিক রহমান(৩৯) এবং ডালিয়া বাইশপুকুর গ্রামের মৃত. আবু বক্কও সিদ্দিকের দুই ছেলে ফারুক রহমান(২৩) ও শরিফুল ইসলাম(২৫)।

এঘটনায় মামলার বাদী সহির উদ্দিন বলেন, পূর্বের শত্রুতার জের ধরে, অভিযুক্ত আসামীরা বাড়িতে আমাকে একাকী পেয়ে চুরি এবং হত্যা করতে চেয়েছিলো। বাদী মামলায় আরো উল্লেখ করেন যে, প্রায় ৭ মাস আগে একটি অনাকাঙ্খিত মৃত্যুর ঘটনায় আমার দুই ছেলে ও আমার স্ত্রীকে আসামী করে মামলা দেয়। সেই মামলায় তারা পলাতক থাকায় আমি বাড়িতে একাই থাকি। এরই সুযোগ বুঝে তারা পরিকল্পিত ভাবে এই ঘটনাটি ঘটায়।

এঘটনার বিষয়ে অভিযুক্ত ব্যক্তিদের সাথে যোগাযোগ করতে গেলে কাউকে পাওয়া যায়নি।

পিএনএস/এসআইআর

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন