গোপালগঞ্জে স্কুলছাত্রীকে 'তুলে নিয়ে' ধর্ষণের অভিযোগ

  

পিএনএস ডেস্ক : গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় কোচিং সেন্টার থেকে বাসায় ফেরার পথে বন্ধুদের সহযোগীতায় এক স্কুলছাত্রী গণধর্ষণের শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সে টুঙ্গিপাড়া উপজেলার একটি স্কুলের শ্রেণির শিক্ষার্থী।

এ ঘটনায় নির্যাতনের শিকার ওই স্কুলছাত্রীর পিতা বাদী হয়ে শুক্রবার রাতে টুঙ্গিপাড়ায় থানায় একটি মামলা (মামলা নং-০২, তারিখ ২০.০২.২০২১) দায়ের করেছেন। গত ১৪ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় এ ঘটনা ঘটে।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, গত ১৪ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় উপজেলার একটি কোচিং সেন্টার থেকে পড়া শেষ করে বাসার ফিরছিলেন ওই ছাত্রী। এসময় ওই শিক্ষার্থী নতুন বাজার বটতলা এলাকায় পৌঁছালে ৩ জন বখাটে যুবক পথ রোধ করে ইজিবাইক চালকের সহযোগিতায় চোখ বেঁধে তুলে নিয়ে যায় তাকে। পরে ওই তিন বখাটে স্কুলছাত্রীর নাকে চেতনানাশক স্প্রে করে ধর্ষণের চেষ্টা করে। কিন্তু সে বাধা দিলে তার মাথায় আঘাত করলে অজ্ঞান হয়ে পড়লে বন্ধুদের সহযোগীতায় ওই স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ করা হয়। পরে রাত ৮টার দিকে অচেতন অবস্থায় তাকে তার বাসার সামনে ফেলে রেখে যায় অভিযুক্তরা।

পরিবারের লোকজন রাতেই ওই স্কুলছাত্রীকে উদ্ধার করে চিকিৎসার টুঙ্গিপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে যায়। রাতে অবস্থার অবনতি ঘটলে গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয় স্কুলছাত্রীকে। সেখানেও তার শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে পরদিন ১৫ ফেব্রুয়ারি বিকেলে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

ভিকটিমের বাবা বলেন, এ ঘটনায় আমার পরিবারের উপর দিয়ে ঝড় বয়ে যাচ্ছে। টুঙ্গিপাড়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেছি। আমি দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।

টুঙ্গিপাড়া থানার ওসি এএফএম নাসিম জানান, এ বিষয়ে ভিকটিমের বাবা টুঙ্গিপাড়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। আসামিদের গ্রেপ্তার করার জন্য অভিযান চলছে। ভিকটিমের মেডিকেল টেস্টের জন্য গোপালগঞ্জ ২৫০-শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন