শিক্ষকের বিরুদ্ধে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ, সালিশে মেয়ের বাবাকেই জরিমানা

  

পিএনএস ডেস্ক : গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলায় এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টা করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে পূর্ব চান্দরা ইসলামিয়া হাফিজিয়া মাদ্রাসার শিক্ষক আশরাফুল ইসলামের (২৫) বিরুদ্ধে। অথচ এ ঘটনায় পাল্টা ওই মেয়ের বাবাকে আট হাজার টাকা জরিমানা করেছে গ্রাম্য সালিশ।

জানা গেছে, গত বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে ওই এলাকার এক স্কুল শিক্ষার্থীকে প্রথমে ধর্ষণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠে। এসময় গ্রামবাসী ওই স্কুল শিক্ষার্থী ও মাদ্রাসার শিক্ষককে তার শয়ন কক্ষে আটকে রাখে। পরে শত শত গ্রামবাসী সেখানে জড়ো হয়ে বিচার দাবি করে। কিন্তু ওই মাদ্রাসার পরিচালক মাওলানা মহিবুল্লাহ দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে উপস্থিত লোকজনকে ধমকিয়ে সরিয়ে দেন।

পরে তিনি মেয়ের বাবাকে খবর দিয়ে মাদ্রাসায় নিয়ে আসেন। একইসঙ্গে তার মাদ্রাসার শিক্ষক আশরাফুলের অভিভাবককে ডেকে নিয়ে অফিস কক্ষে গ্রাম্য সালিশে বসেন। সেখানে মাদ্রাসার শিক্ষক ও কয়েকজন হিতাকাঙ্ক্ষী ছাড়া গ্রামবাসীর আর কাউকে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। পরে বিচারে মেয়ের বাবাকে আট হাজার টাকা উল্টো জরিমানা করেন পরিচালক মহিবুল্লাহ। অভিযুক্ত শিক্ষক আশরাফুলকেও পঞ্চাশ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

এছাড়া এ ঘটনা থানা পর্যন্ত গড়াবে জেনে পরিচালক মহিবুল্লাহ রাতেই সুকৌশলে মেয়েকে সিরাজগঞ্জের গ্রামের বাড়িতে এবং অভিযুক্ত শিক্ষককে ময়মনসিংহের গ্রামের বাড়িতে পাঠিয়ে দেন। যা থেকে এলাকার মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন গ্রামবাসী জানান, গ্রামবাসী রাত সাড়ে ৯টার দিকে খবর পেয়ে ওই মাদ্রাসায় যায়। সেখানে সপ্তম শ্রেণি পড়ুয়া মেয়ে ও মাদ্রাসার শিক্ষক আশরাফুলকে আটকে রাখা হয়। পরে খবর পেয়ে মাদ্রাসার পরিচালক মহিবুল্লাহ ঘটনাস্থলে গিয়ে গ্রামবাসীর সঙ্গে দুর্ব্যবহার করে তাড়িয়ে দেন।

তারা আরো জানান, এসময় মাদ্রাসার পরিচালক মহিবুল্লাহ ও কয়েকজন গ্রামবাসী অভিযুক্ত শিক্ষকের কক্ষে ঢুকে যৌন উত্তেজক মালামাল দেখতে পান। এ ঘটনা দ্রুত ধামাচাপা দেওয়ার জন্য মাদ্রাসার অফিসে বসে মাদ্রাসার সুনাম নষ্টের অভিযোগে মেয়ের বাবাকে ভয়ভীতি দেখিয়ে উল্টো আট হাজার টাকা ও অভিযুক্ত শিক্ষককে পঞ্চাশ হাজার টাকা জরিমানা করেন। পরে রাতেই তাদের আত্মগোপনে পাঠান।

এ ঘটনায় মেয়ের বাবা জানান, আমরা গরিব ও ভিনদেশী মানুষ। মেয়ের এ ঘটনার বিচার চাইলেও পাব না। উল্টো আমাকেই এ ঘটনায় আট হাজার টাকা জরিমানা দিতে হয়েছে।

পূর্ব চান্দরা ইসলামিয়া হাফিজিয়া মাদ্রাসার পরিচালক মহিবুল্লাহ জানান, এখানে তেমন কোনো বড় ঘটনা ঘটেনি। যা ঘটেছে তা মীমাংসা করা হয়েছে।

কালিয়াকৈর থানার ওসি তদন্ত রাজিব চক্রবর্তী জানান, এ রকম কোনো অভিযোগ পাইনি। তবে কেউ অভিযোগ দিলে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন