মেহেদির রং না শুকাতেই যৌতুকের বলি শিল্পী

  

পিএনএস ডেস্ক : হাতে মেহেদির রং এখনো শুকায়নি। এরই মধ্যে যৌতুকের বলি হয়েছেন শিল্পী রানী দাস (১৯) নামে এক নববধূ। মাত্র ১০ হাজার টাকা ও আধা ভরি স্বর্ণালঙ্কারের জন্য তাকে শ্বাসরোধে করে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

নরসিংদির পলাশ উপজেলায় সোমবার বিকেলে এই ঘটনা ঘটে। মঙ্গলবার দুপুরে ঘাতক স্বামী ও শ্বশুরকে গ্রেপ্তার করেছে থানা পুলিশ।

শিল্পী রানীর ভাই শুভ চন্দ্র দাস জানিয়েছেন, শিল্পী রানী ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার প্রদীপ চন্দ্র দাসের মেয়ে। শ্যামল দাস নরসিংদীর পলাশ উপজেলার জিনারদী ইউনিয়নের জিনারদী গ্রামের বিমল দাসের ছেলে। চলতি বছরের ২১ ফেব্রুয়ারি তাদের পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়।

তিনি বলেন, বিয়ের সময় ছেলেপক্ষ নগদ এক লাখ ১০ হাজার টাকা ও এক ভরি স্বর্ণালঙ্কার দাবি করেন। বিয়ের সময় শিল্পীর পরিবারের পক্ষ থেকে ছেলেপক্ষকে নগদ এক লাখ টাকা ও আধভরি স্বর্ণালংকার দেয় হয়।

ছেলেপক্ষের দাবিকৃত যৌতুকের আধভরি স্বর্ণ ও ১০ হাজার টাকা কম দেয়ায় বিয়ের পর থেকেই শিল্পীর ওপর নির্যাতন শুরু হয়। পরে নির্যাতনের মাত্রা বাড়তে থাকলে যৌতুকের বাকি টাকা ও স্বর্ণ পরিশোধে শিল্পীর স্বজনরা ছেলের পরিবারের কাছে ক্ষমা চেয়ে ৬ মাসের সময় নেয়। কিন্তু তা মানতে নারাজ ছেলের পরিবার।

এ নিয়ে গত সোমবার সকালে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া শুরু হয়। এরই এক পর্যায়ে স্বামী শ্যামল শিল্পীর গলায় চাপ দিয়ে ধরে। এতে তার মৃত্যু হয়। পরে বিকালে পলাশ থানা পুলিশ শিল্পীর লাশ স্বামীর বাড়ি থেকে উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নরসিংদী সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

এ ঘটনায় সোমবার রাতে শিল্পী রানীর ভাই শুভ চন্দ্র দাস বাদী হয়ে স্বামী শ্যামল ও শ্বশুর বিমলকে আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

পলাশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মো. নাসির উদ্দীন জানান, শিল্পী রানীর শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় থানায় হত্যা মামলা দায়ের হয়েছে। মামলার পর অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত স্বামী শ্যামল ও শ্বশুর বিমলকে গ্রেপ্তার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়।

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন